অন্যান্যআইন-বিচারবাংলাদেশ

ভূয়া খবর বন্ধে অনলাইন নীতিমালা: আইনমন্ত্রী

ভূয়া খবর প্রচার ও প্রকাশ বন্ধে সরকার ডিজিটাল সিকিউরিটি আইন প্রণয়নের কাজ করছে বলে জানিয়েছেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক। শনিবার রাজধানীর কসমস সেন্টারে ‘ফেইক নিউজ এন্ড হেইট স্পিস, কজেজ এন্ড কনসিক্যুয়েন্সেস: হাউ ইট সাবভার্টস আওয়ার ডেমোক্রেটিক সিস্টেমস’ শিরোনামে আয়োজিত আলোচনা সভায় তিনি এ কথা বলেন। কসমস ফাউন্ডেশন এ অনুষ্ঠানটির আয়োজন করে।

তিনি জানান, সাইবার আদালত গঠন, গুজব প্রতিরোধে ও অবহিতকরণ সেল গঠনের পাশাপাশি অনলাইন নিউজ পোর্টালগুলোকে জবাবদিহিতার আওতায় আনার জন্য রেজিস্ট্রেশনের উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। একইসঙ্গে অনলাইন নীতিমালা প্রণয়নে সরকার কাজ করছে। মূল ধারার গণমাধ্যমগুলোকে ভুয়া খবর প্রকাশ বন্ধে কার্যকরি ভূমিকা রাখারও আহ্বান জানান মন্ত্রী।

আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেন, আমাদের দেশে পাঁচটি উদ্দেশ্যে ভূয়া খবর(ফেইক নিউজ) প্রকাশ করা হয়। এর উদ্দেশ্য হলো, এক. সাম্প্রদায়িক গুজব ছড়ানো; দুই. উগ্র রাজনৈতিক ধর্মীয় মিথ্যাচার প্রচার; তিন. রাজনৈতিক প্রতিপক্ষকে ঘায়েল করা; চার. জনমনে আতঙ্ক সৃষ্টি করা এবং পাঁচ. অবৈজ্ঞানিক জল্পনা-কল্পনা প্রচার করা।

এরমধ্যে পাঁচ নম্বর কারণ ক্ষতিকর না হলেও বাকি চারটি ভূয়া খবরের কারণে জনমনে সহিংস প্রভাব পড়ে।

আইনমন্ত্রী আরো জানান,ভূয়া খবরের প্রচার ও প্রকাশ বন্ধে বিটিআরসি,আইসিটি বিভাগ,পুলিশ ডিপার্টমেন্ট ও গোয়েন্দা সংস্থাগুলো কাজ করছে।

মূল ধারার সংবাদ মাধ্যমগুলোকে বস্তুনিষ্টি সংবাদ তৈরি এবং তা দ্রুততম সময়ের মধ্যে পাঠকদের কাছে পৌঁছে দেয়ার আহ্বান জানান তিনি। আইনমন্ত্রী বলেন,‘খবরের জন্য কেউ যেন সোস্যাল মিডিয়ার দ্বারস্থ্য না হয় সেদিকে লক্ষ্য রাখতে হবে। সংবাদ মাধ্যমগুলো সত্য এড়ানোর প্রবণতা থেকে বেরিয়ে আসতে হবে। কারণ আমাদের মনে রাখতে হবে,মানুষের সত্য জানার পথ সেখানেই বন্ধ হয়ে যায়,যেখান থেকে ভূয়া খবরের প্রচার শুরু হয়।’

কসমস ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান ইনায়েতুল্লাহ খানের সভাপতিত্বে এতে বক্তব্য রাখেন, সিঙ্গাপুরের ইনস্টিটিউট অব সাউথ এশিয়ান স্ট্যাডিসের (আইএসএএস  ) প্রধান গবেষক ড. ইফতেখার আহমেদ চৌধুরী, অ্যাসোসিয়েশন ফর অ্যাকাউন্টিবিলিটি এন্ড ইন্টারনেট ডেমোক্রেসির প্রেসিডেন্ট ডান সেফেটসহ বিশিষ্টজনেরা।

বাংলাটিভি/হাকিম

সংশ্লিষ্ট খবর

Close

Adblock Detected

Please consider supporting us by disabling your ad blocker