অন্যান্যবাংলাদেশ

বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস আজ

বাংলাদেশের স্থপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঐতিহাসিক স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস আজ। ১৯৭২ সালের এই দিনে পাকিস্তানের বন্দিদশা থেকে মুক্তি পেয়ে লন্ডন ও নয়াদিল্লি হয়ে রক্তস্নাত স্বাধীন-সার্বভৌম বাংলাদেশের মাটিতে পা রাখেন তিনি।

সশস্ত্র মুক্তিযুদ্ধে ১৯৭১ সালের ১৬ ডিসেম্বর চূড়ান্ত বিজয় অর্জিত হলেও প্রকৃতপক্ষে জাতির পিতার স্বদেশ প্রত্যাবর্তনের মধ্য দিয়ে এ বিজয় পূর্ণতা লাভ করে।

১৯৭১ সালের ২৬ মার্চ প্রথম প্রহরে গ্রেপ্তারের পর থেকে মুক্তিযুদ্ধের পুরো সময় করাচীর মিয়ানওয়ালী কারাগারে বন্দী ছিলেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। একাত্তরের ১৬ ডিসেম্বর বাঙালির চূড়ান্ত বিজয় অর্জিত হলেও, বঙ্গবন্ধুর ফিরে আসা নিয়ে সমগ্র জাতির মধ্যে ছিল চরম উদ্বেগ-উৎকণ্ঠা ও হতাশা।

বিশ্বনেতারা বঙ্গবন্ধুর মুক্তির দাবিতে সোচ্চার হয়ে ওঠেন।  বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পরিকল্পনা করলেও শেষ পর্যন্ত ১৯৭২ সালের ৮ জানুয়ারি বিশ্ব জনমত ও আন্তর্জাতিক চাপে পরাজিত পাকিস্তানী শাসকগোষ্ঠী বন্দিদশা থেকে বঙ্গবন্ধুকে সসম্মানে মুক্তি দিতে বাধ্য হয়।

১০ জানুয়ারির বিকেলে বঙ্গবন্ধুকে বহনকারী বিমানটি যখন তেজগাঁও বিমানবন্দরের রানওয়ে স্পর্শ করে, তখন অগণিত জনতা মুহুর্মুহু করতালি ও গগণবিদারী স্লোগানে স্বাগত জানায় প্রিয় নেতাকে।

বিমানবন্দর থেকে প্রিয় নেতাকে খোলা ট্রাকে করে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে নিয়ে যান লাখো জনতা। সেখানে তিনি সদ্য স্বাধীন জাতির উদ্দেশে ভাষণ দেন। প্রায় কুড়ি মিনিটের আবেগঘন বক্তৃতায় বঙ্গবন্ধু মুক্তিযুদ্ধে বিজয়ের জন্য দেশবাসীকে অভিনন্দন জানানোর পাশাপাশি, ভবিষ্যতের দিক নির্দেশনাও দেন।

বঙ্গবন্ধু নিজেই তাঁর এ স্বদেশ প্রত্যাবর্তনকে আখ্যায়িত করেছিলেন ‘অন্ধকার হতে আলোর পথে যাত্রা’ হিসেবে। বাঙালির জাতীয় জীবনেও দিনটি এক গৌরবময় অধ্যায়।

আসাদ রিয়েল, বাংলা টিভি

সংশ্লিষ্ট খবর

Back to top button
Close