বাংলাদেশআওয়ামী লীগরাজনীতি

চলতি বোরো মৌসুমের চাল সংগ্রহ কার্যক্রম শুরু

শুরু হলো চলতি বোরো মৌসুমের চাল সংগ্রহ কার্যক্রম মিলারদের কাছ থেকে ৪০ টাকা কেজি দরে ১০ লক্ষ মেট্রিক টন সিদ্ধ চাল ও ৩৯ টাকা কেজি দরে ১লক্ষ ৫০ হাজার মেট্রিক টন আতপ চাল সংগ্রহ করা হচ্ছে।

শনিবার সকাল ১১টায় ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যামে যুক্ত হয়ে ‘সারাদেশে বোরো চাল সংগ্রহ-২০২১’ এর উদ্বোধন করেন খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার। সভায় সভাপতিত্ব করেন খাদ্য মন্ত্রণালয়ের সচিব মোছাম্মৎ নাজমানারা খানুম। অনলাইনে যুক্ত ছিলেন জাতীয় সংসদের হুইপ ইকবালুর রহিম, এমপি, টাঙ্গাইলের সংসদ সদস্য মো:মনোয়ার হোসেন,দেশের প্রতিটি বিভাগ ও জেলা প্রশাসনের কর্মকর্তাগণ, প্রতিটি বিভাগ ও জেলার খাদ্য বিভাগের কর্মকর্তাগণ, খাদ্য মন্ত্রণালয় ও খাদ্য অধিদপ্তরের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাগণ এবং মিল মালিক প্রতিনিধিবৃন্দ।

মন্ত্রী বলেন, গত ২৮এপ্রিল থেকে সরাসরি কৃষকের কাছ থেকে ধান ক্রয় করা শুরু হয়েছে। আমরা ইতোমধ্যেই ৬টি বিভাগের আওতাধীন প্রতিটি জেলার জেলা প্রশাসনের কর্মকর্তাবৃন্দ, খাদ্য বিভাগের কর্মকর্তাবৃন্দ ও মিল মালিক প্রতিনিধিদের সঙ্গে অনলাইনে সভা করেছি। সেখানে মাঠ পর্যায়ের কর্মকর্তা কর্মচারীদেরকে চলমান বোরো সংগ্রহ সম্পর্কে বিভিন্ন দিক নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। কোন মাসে কি পরিমাণ সংগ্রহ করা হবে তার একটা পরিকল্পনাও তৈরি করা হয়েছে। এছাড়া মিল মালিকদের সঙ্গে চুক্তির জন্য নীতিমালা অনুযায়ী বিভাজন প্রক্রিয়া সম্পন্ন করে জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রকদের নিকট প্রেরণ করা হয়েছে। আগামীকাল চুক্তির শেষদিন।

কোনভাবেই চুক্তির মেয়াদ বাড়ানো হবে না। খাদ্যমন্ত্রী আরো বলেন, সংগ্রহ অভিযান চলাকালে কৃষকরা সরাসরি গুদামে গিয়ে ধান বিক্রি করছে। চাল সরবরাহের জন্য মিলারগণ খাদ্য বিভাগের সাথে চুক্তিবদ্ধ হয়েছে। গুদামে ধান দেবার সময় কৃষককে যাতে কোনো প্রকার হয়রানির শিকার হতে না হয় সেদিকে সজাগ দৃষ্টি রাখার জন্য কর্মকর্তা-কর্মচারীদের প্রতি নির্দেশনা দেন তিনি। কৃষকের স্বার্থের কথা চিন্তা করে; তাদের ন্যায্য মূল্য নিশ্চিত করার জন্য ধান চাল কেনার ক্ষেত্রে ধানকে অগ্রাধিকার দিতে বলেন মন্ত্রী। খাদ্য সরবরাহ নিশ্চিত করার জন্য পরস্পর পরস্পরের সাথে মিলেমিশে, ভালো আচরণ করার মাধ্যমে,সততা ও নিষ্ঠার সাথে নিত্য নতুন উদ্যোগ নিয়ে চলমান বোরো সংগ্রহ শতভাগ সফল করার আহ্বান জানিয়ে সাধন চন্দ্র মজুমদার বলেন, বর্তমান সময়ে করোনার সঙ্গে আমরা যেমন যুদ্ধ করছি; তেমনি করোনা পরবর্তী খাদ্যের যোগান নিশ্চিত করার জন্যও আমাদেরকে এখন থেকেই যুদ্ধ করতে হবে।

তিনি সতর্ক করে বলেন, চালের মান নিয়ে কোনো আপোষ নেই এবং কোনভাবেই পুরাতন চাল দেয়া যাবে না। এবারের বোরো ধানের চাল দিতে হবে। কর্মকর্তা-কর্মচারীদেরকে সঠিকভাবে সরকারি নির্দেশনা মোতাবেক স্বাস্থ্যবিধি মেনে;মুখে মাস্ক পরিধান করে; সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে ধান-চাল সংগ্রহের মাধ্যমে মজুদ ত্বরান্বিত করার নির্দেশনা দেন খাদ্যমন্ত্রী।

বাংলাটিভি/শহীদ

সংশ্লিষ্ট খবর

Back to top button