দেশবাংলা

সৌন্দর্য হারাতে বসেছে টাঙ্গাইলের ঐতিহ্যবাহী উপেন্দ্র সরোবর

সংস্কারের অভাবে সৌন্দর্য ও জৌলুস হারাতে বসেছে টাঙ্গাইলের নাগরপুরের ঐতিহ্যবাহী উপেন্দ্র সরোবর।দিনদিন মুছে যাচ্ছে জমিদারদের স্মৃতিচিহ্নটুকু। ইতোমধ্যে বেহাত হয়ে গেছে সরোবরটির বড় একটি অংশ।

এই সরোবরের উভয় পাড়ে মাটির বাঁধ ভেঙে খানা খন্দকে পরিণত হয়েছে। অধিকাংশ ঘাট ভেঙে ব্যবহারের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে।

আজ থেকে ৮৪ বছর আগে নাগরপুরের তৎকালীন জমিদার রায় বাহাদুর সতীশ চৌধুরী তার পিতা উপেন্দ্র মোহনের

নামানুসারে ১১ একর জমির ওপর দৃষ্টিনন্দন সরোবরটি খনন করেছিলেন।

তৎকালীন আটিয়া পরগনার সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য স্থাপত্য কীর্তি উপেন্দ্র সরোবরে মোট ১২ টি সান বাঁধানো ঘাট রয়েছে।এ কারনে স্থানীয়ভাবে এটি বার ঘাটলা দীঘি নামেই পরিচিত।

এর চারদিকে ঘুরলেই প্রকৃতির অপরূপ শোভায় মন ভরে যায়।

এ অঞ্চলবাসীর প্রাকৃতিক সৌন্দর্য উপভোগের এটিই একমাত্র স্থান।

জনশ্রুতি রয়েছে, এলাকার মানুষের কল্যানের কথা চিন্তা করে তাদের সুপেয় পানীর ব্যবস্থা করতেই, সুদুর বিহার থেকে বিশেষজ্ঞ এনে এ সরোবরটি খনন করা হয়।

নয়নাভিরাম উপেন্দ্র সরোবরটি ছিল একসময় পরিযায়ী পাখিদের নিরাপদ আবাসস্থল। ছিল সৌখিন মাছ শিকারীদের আনাগোনা।

একঘেয়ামী জীবনে একটু স্বস্তি পেতে এখানে ছুটে আসেন অনেক প্রকৃতিপ্রেমী।

উপেন্দ্র সরোবরের হারানো জৌলুস ফিরিয়ে দিতে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপের কথা জানালেন, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা।

সরোবরটি রক্ষায় এখনই কার্যকর পদক্ষেপ না নিলে কালের স্রোতে হারিয়ে যাবে জমিদারদের স্মৃতি স্মারক।

সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের একটু সুনজরে ঐতিহ্যবাহী উপেন্দ্র সরোবরটি হয়ে উঠতে পরে দেশের আকর্ষণীয় পর্যটন কেন্দ্র। এমনটাই মনে করছেন স্থানীয়রা।

খন্দকার হাবিবুল্লাহ কামাল, টাঙ্গাইল

 

সংশ্লিষ্ট খবর

Back to top button
Close