দুর্ঘটনাদেশবাংলাবাংলাদেশ

অরক্ষিত রেলক্রসিং: বর-কনেসহ মাইক্রোবাসের ১১ যাত্রী নিহত

সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়ায় একটি অরক্ষিত লেভেল ক্রসিংয়ে বরযাত্রী বহনকারী মাইক্রোবাস ও ট্রেনের সংঘর্ষে বর-কনেসহ ১১ জনের মৃত্যু হয়েছে। আহত হয়েছে ৪ জন। মাইক্রোবাসটিতে সদ্য বিবাহিত বর-কনেসহ মোট ১৫ জন বরযাত্রী ছিল। সোমবার সন্ধ্যা সাতটার দিকে, সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়া উপজেলার সলপ লেভেল ক্রসিংয়ে এ ঘটনা ঘটে।

ফায়ার সার্ভিস জানায়, উল্লাপাড়ার চর ঘাটিনায় কনের বাড়ি থেকে বরযাত্রী নিয়ে সদরের কালিয়া হরিপুরে যাচ্ছিল মাইক্রোবাসটি। এমন সময়, রাজশাহী থেকে ঢাকাগামী পদ্মা এক্সপ্রেস ট্রেনটি লেভেল ক্রসিং অতিক্রম করার সময় মাইক্রোবাসটিও রেললাইনে উঠে যায়। এতে, মাইক্রোবাসটিকে ট্রেনটি ধাক্কা দিলে সঙ্গে সঙ্গে তা দুমড়ে মুচড়ে যায়। এ অবস্থায় মাইক্রোবাসটিকে প্রায় এক কিলোমিটার দূরে নিয়ে থামে ট্রেনটি।

নিহতরা হলেন- সিরাজগঞ্জ সদর উপজেলার উত্তর কান্দাপাড়া গ্রামের আলতাফ হোসেনের ছেলে বর রাজন (২২), তার নববিবাহিত স্ত্রী উল্লাপাড়া গুচ্ছগ্রামের সুমাইয়া খাতুন (১৮), একই গ্রামের আশরাফ আলীর স্ত্রী মমতা বেগম (৩৫), বরের মামাতো ভাই শিশু আলিক (১০), মাইক্রোবাসের চালক কামারখন্দ উপজেলার জামতৈল এলাকার মন্টু সেখের ছেলে স্বাধীন (৩০), বরযাত্রী শহরের রামগাতি মহল্লার আব্দুল মতির ছেলে আব্দুস সামাদ (৫০), তার স্ত্রী হাওয়া বেগম (৪৫), ছেলে শাকিল (২০), কালিয়া হরিপুর চুনিয়াহাটির মৃত মহির উদ্দিনের ছেলে ভাষা সেখ (৫৫) ও শহরের সয়াধানগড়া মহল্লার সুরুত আলীর ছেলে আব্দুল আহাদ (২৫)।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে উল্লাপাড়া থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কউশিক আহমেদ বলেন, রাজশাহী থেকে ঢাকাগামী পদ্মা এক্সপ্রেস ট্রেনটি উল্লাপাড়ার সলক রেলক্রসিং এলাকায় একটি বরবাহী মাইক্রোবাসকে ধাক্কা দেয়। এতে বর-কনেসহ মাইক্রোবাসের ১০ যাত্রী নিহত হন। সেই সঙ্গে ছয়জন আহত হয়েছেন। তাদের মধ্যে কয়েকজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। ফায়ার সার্ভিসকর্মীরা খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে এসে উদ্ধারকাজ শুরু করেন। আহতদের হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

বাংলাটিভি/প্রিন্স

সংশ্লিষ্ট খবর

Back to top button
Close