জনদুর্ভোগবাংলাদেশ

২ বছরেও বাস্তবায়ন হয়নি সিসিটিভি ক্যামেরা বসানোর উদ্যোগ

‘ডেভেলপমেন্ট অব ঢাকা সিটি ডিজিটাল মনিটরিং সিস্টেম’ নামের পুলিশ হেড কোয়ার্টারের গৃহীত সড়কের পাশে সিসি টিভি ক্যামেরা বসানোর প্রকল্পটি এখনো আটকে আছে কাগজে কলমে। ২ বছরেও আলোর মুখ দেখেনি রাজধানীকে নিরাপত্তার চাদরে ঘিরে ফেলতেই এই  উদ্যোগ। তবে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের দাবি, কাজ চলমান রয়েছে।

সম্প্রতি সাইন্সল্যাবে পুলিশের উপর যেখানে হামলা চালানো হয় সে রাস্তায় পাওয়া যায়নি কোনো সিসি ক্যামেরা। একটি বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠান তার ভাবনে সিসি ক্যামেরা বসালেও সেটির মুখ রয়েছে সড়কের উল্টো দিকে। একইভাবে কিছু দিন আগে ফার্মগেটে যে হামলা চালানো হয় সে রাস্তাতেও পাওয়া যায়নি সিসি ক্যামেরা।

বর্তমানে রাজধানীতে  যতগুলো ক্যামেরা আছে সেগুলোর বেশিরভাগই বসিয়েছে বিভিন্ন এলাকার সোসাইটি বা নানা সংস্থা। যেমন উত্তর সিটিতে আছে প্রায় ১ হাজার ক্যামেরা। তবে সেটি ডিএমপি বা পুলিশ সদর দফতরের নয়।

নাগরিক নিরাপত্তা বিধানে পুরো রাজধানীকে এই নিরাপত্তা চোখের আওতায় আনার উদ্যোগ নিয়েছিলো পুলিশ সদর দফতর। সূত্র বলছে, ২ বছর আগের সেই উদ্যোগ এখনো আলোর মুখ দেখেনি। কথা ছিলো এই প্রকল্পের আওতায় রাজধানীতে বসানো হবে ৫০ হাজার ক্যামেরা। চুরি ছিনতাই ডাকাতি কিংবা খুনের মতো বহু অপরাধের কূল কিনারা উৎঘাটিত হয়েছে সিসি টিভি ক্যামেরার ফুটেজের সূত্র ধরেই। শুধু রাজধানী নয় ঢাকার বাইরেও অপরাধী ধরতে এই ক্যামেরা সহায়তা করেছে পুলিশ বাহিনীকে।

যদিও ডিএমপির কর্মকর্তারা বলছেন, ইতোমধ্যেই নগরীর অনেক এলাকাকেই সিসি টিভির আওতায় আনা হয়েছে।

অপরাধ বিশ্লেষকরা বলছেন, পুরো রাজধানীকেই আনা উচিত সিসি টিভি ক্যামেরার আওতায়। এক অপরাধ বিশ্লেষক বলেন, ডিজিটাল বাংলাদেশ হলে মানুষ সুবিধা পাবে, দুর্নীতিও কমবে। এছাড়াও মানুষের মনে স্বস্তি আসবে।

বাংলাটিভি/ সৌরভ নূর

সংশ্লিষ্ট খবর

Back to top button
Close