অপরাধবাংলাদেশ

সবজির হাটে অস্ত্রের কেনাবেচা

সিলেটের গোয়াইনঘাট উপজেলার পর্যটন স্পট বিছনাকান্দি এলাকার একটি সবজি বাজারে দৈনন্দিন সবজি বিক্রির আড়ালে দুই বছর ধরে বাজারটিকে অস্ত্র কেনাবেচার জন্য ব্যবহার করে আসছিল একটি চোরাকারবারি চক্র। এই চক্রের মূল হোতাসহ চারজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

সিলেটের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ ফরিদ উদ্দিন বুধবার বেলা ১১টায় নিজ কার্যালয়ের সম্মেলনকক্ষে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এই তথ্য দেন ।

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, ৫ সেপ্টেম্বর ঢাকার সায়েদাবাদ থেকে তিনজনকে আটক করে কাউন্টার টেররিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম ইউনিটের (সিটিটিসি) একটি দল। ওই তিনজন অস্ত্র চোরাচালানের একটি চক্রের সঙ্গে যুক্ত। আটকের সময় তাঁদের কাছ থেকে তিনটি রিভলবার উদ্ধার করা হয়।

এরই সূত্র ধরে গত মঙ্গলবার বিকেলে সিলেটের সীমান্ত এলাকা গোয়াইনঘাটের বিছনাকান্দি নোয়াগাঁও এলাকায় অভিযান চালানো হয়। এ সময় আটক করা হয় আরব আলী নামের এক ব্যক্তিকে। তাঁর কাছে পাওয়া যায় দুটি রিভলবার। পুলিশ বলছে, এই আরব আলীই অস্ত্র চোরাচালান চক্রটির মূল হোতা।

পুলিশ সুপার ফরিদ উদ্দিন সংবাদ সম্মেলনে বলেন, ভারতের বারিক খাসিয়া নামের এক ব্যক্তি সবজির আড়ালে আরব আলীর কাছে অস্ত্র বিক্রি করে আসছেন। গত দুই বছরে তিনটি চালানে ১২টি অস্ত্র দেশে নিয়ে এসেছেন বলে পুলিশের কাছে স্বীকার করেছেন আরব আলী। সেসব অস্ত্র তিনি আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যদের চোখ ফাঁকি দিয়ে দেশে এনে শহীদ ও আনসারের হাতে দিতেন। তাঁরা দেশের বিভিন্ন প্রান্তে সেগুলো বিক্রি করতেন।

পুলিশ বলছে, আটক হওয়া শহীদ স্বেচ্ছাসেবক দলের নেতা এবং আনসার যুবদলের নেতা। চোরাচালানের মাধ্যমে আসা অস্ত্র রাজনৈতিক প্রভাব বিস্তার এবং সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড—দুই কাজেই ব্যবহৃত হতো বলে ধারণা পুলিশের। বাংলাদেশের সীমান্তবর্তী লাকাটা বাজারে সপ্তাহে দু-তিন দিন সীমান্ত হাট বসে। এই হাটে দুই দেশের স্থানীয় লোকজন নিজের উৎপাদিত কৃষিপণ্য বেচাকেনা করে। ওই বাজারে সবজি বিক্রির আড়ালে প্রায় দুই বছর ধরে অস্ত্র বেচাকেনা চলছিল বলে ধারনা করছে পুলিশ।

সংশ্লিষ্ট খবর

Back to top button
Close