অন্যান্যবাংলাদেশ

‘উপাচার্য জবাবদিহি না করলে কঠোর আন্দোলন’

সৌরভ নূর : আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা জানান, ৩০ ঘণ্টা অতিবাহিত হওয়ার পরেও উপাচার্য কেন ঘটনাস্থলে উপস্থিত হননি, ঘটনার ৩৮ ঘণ্টা পর উপস্থিত হয়ে শিক্ষার্থীদের সঙ্গে ‘বিরূপ আচরণ’ করেন। এছাড়া কোনো প্রশ্নের উত্তর না দিয়ে স্থানত্যাগ করেছেন, উপাচার্যকে আজকের মধ্যে সশরীরে ক্যাম্পাসে এসে জবাবদিহি করতে হবে। নতুবা আমরা কঠোর আন্দোলনে যাবো।

রোববার রাতে বুয়েটের দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র আবরার ফাহাদকে শেরে বাংলা হলের ২০১১ নম্বর কক্ষে পিটিয়ে হত্যা করা হয়। এ ঘটনা হলের প্রাধ্যক্ষ জানেন রাত পৌনে তিনটায়। এরপরও বিশ্ববিদ্যালয়ের অভিভাবক হিসেবে উপাচার্য সেখানে যাননি। প্রায় দুই দিন পর ক্যাম্পাসে এলেও শিক্ষার্থীদের সামনে আসেননি উপাচার্য।

হত্যাকান্ডটি যে হলে ঘটেছে, সেখানেও যাননি তিনি। এছাড়া জানাজায় অংশ না নিয়ে ব্যাপক সমালোচনার মুখে পড়েছেন বুয়েটের উপাচার্য সাইফুল ইসলাম। এদিকে শিক্ষার্থীরা সুনির্দিষ্ট সময় বেধে দিয়ে ১০ দফা দাবিতে বিক্ষোভ চালাচ্ছে আজকেও।

হত্যার ৪১ ঘণ্টা পর মঙ্গলবার দিনভর আন্দোলন করার পর বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীদের সামনে এলে তোপের মুখে পড়েন বুয়েট উপাচার্য। একপর্যায়ে শিক্ষার্থীদের সাথে কথা বলতে বাধ্য হন তিনি। এসময় শিক্ষার্থীরা তাদের দাবি তুলে ধরলে শিক্ষার্থীদের দাবি পূরণের আশ্বাস দেন উপাচার্য।

এদিকে বুয়েট প্রাঙ্গণে আবরারের প্রথম জানাজা কিংবা দাফন দুটোর কোনোটিতেই উপস্থিত না থাকলেও আবরারের পরিবারের সঙ্গে দেখা করতে সকালে কুষ্টিয়ার উদ্দেশ্যে রওনা হয়েছেন উপাচার্য সাইফুল ইসলাম।

সংশ্লিষ্ট খবর

Back to top button
Close