দেশবাংলা

সুবীর নন্দীর পৈতৃক ভিটা সংরক্ষণের দাবি স্থানীয়দের

কয়েক মাস আগে দেশবাসিকে কাঁদিয়ে না ফেরার দেশে চলে গেছেন, একুশে পদকপ্রাপ্ত দেশবরেণ্য কণ্ঠশিল্পী সুবীর নন্দী। তার মৃত্যুর পরপরই বেদখল হয়ে যাচ্ছে হবিগঞ্জের বানিয়াচংয়ে তার পৈতৃক ভিটা। রাতে সেখানে বসে বখাটেদের আড্ডাসহ, চলে অনৈতিক কর্মকান্ড।

নন্দিত এই সঙ্গীত শিল্পীর পৈতৃক ভিটাটি উদ্ধার করে, সেখানে একটি পাঠাগার ও সংগীত চর্চা কেন্দ্র গড়ে তোলার দাবি স্থানীয়দের।

হবিগঞ্জের বানিয়াচং উপজেলার নন্দীপাড়া গ্রামের কৃতি সন্তান দেশবরেণ্য কণ্ঠশিল্পী সুবীর নন্দী। তাঁর পূর্ব পুরুষরা ছিলেন জমিদার পরিবারের। নিজেদের বংশের নামে নন্দী গ্রামের নামকরণ হয় নন্দি পাড়া। বানিয়াচংয়ের হাওরজুড়ে তাদের ছিলো বিশাল সম্পত্তি।

কিন্তু দীর্ঘদিন ধরে পৈতৃক ভিটায় বসবাস না করায়, সেটি বেদখল হয়ে পড়েছে। এমনকি হাওরের জমিগুলোও দখল করে নিয়েছেন প্রভাবশালীরা। সে বাড়িটি এখন বখাটেদের আড্ডাখানায় পরিণত হয়েছে। কিংবদন্তী এই শিল্পীর পৈত্রিক ভিটাটি উদ্ধার করে সেখানে পাঠাগার ও সংগীত চর্চা কেন্দ্র গড়ে তোলার দাবি স্থানীয়দের।

তবে বাড়িটি রক্ষণা-বেক্ষণের জন্য প্রত্নতত্ব বিভাগ কাজ শুরু করছে। জেলা প্রশাসন থেকে তাদেরকে সর্বাত্মক সহযোগিতা করার কথা বললেন, হবিগঞ্জ জেলা প্রশাসক মো. কামরুল হাসান।

বিশ্ববরেণ্য এ কণ্ঠশিল্পীর পৈতৃক ভিটাটি উদ্ধার করে সেখানে একটি সংগীত চর্চা কেন্দ্র নির্মাণ করলে, আগামী প্রজন্ম বাংলার সংগীতকে আরও সমৃদ্ধ করবে বলে মনে করেন, সাংস্কৃতিক কর্মীরা।

কাজল সরকার, হবিগঞ্জ প্রতিনিধি 

সংশ্লিষ্ট খবর

Back to top button
Close