দেশবাংলা

আখাউড়ায় অরক্ষিত ২শ ৫০টি গণকবর

স্বাধীনতার ৪৮ বছর পরও ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়ায় শহীদ মুক্তিযোদ্ধা এবং মুক্তিকামী জনতার ২শ ৫০টি গণকবর এখনও অরক্ষিত রয়েছে। ‘১৯৭১ সালে পাক বাহিনী ও তাদের এদেশীয় দোসরদের হাতে নিহত হন এসব মানুষ। আর এ কবরগুলোকে সংরক্ষনের দাবি জানিয়েছেন, মুক্তিযোদ্ধা ও শহীদ পরিবারের সদস্যরা।

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়া উপজেলার সেনারবাদী গ্রামে ও ভারতের ত্রিপুরা রাজ্যের আগরতলা দক্ষিণ রামনগর সীমান্তের নো-ম্যানসল্যান্ডের ২শ ৫০ শহীদের গণকবর এটি।

১৯৭১ মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে ভারতের ত্রিপুরা রাজ্যের আগরতলার জিবি হাসপাতালে যেসব যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধা মারা যেতেন তাদেরকে এখানে দাফন করা হতো। তাছাড়াও পাক বাহিনীদেরদের গুলিতে নিহত মুক্তিযোদ্ধাদেরকেও সমাহিত করা হয়।

স্বাধীনতার পূর্ব সময়ে বাংলাদেশ এবং ভারত দু’দেশের মানুষই এ কবরস্থানটিকে যৌথভাবে ব্যবহার করত। কিন্তু যুদ্ধের সময় শহীদদের লাশ দাফন করায় পরবর্তীকালে এলাকাবাসী এ কবরস্থানটিকে আর ব্যবহার করেনি। স্থানীয়দের দাবি এখানের বদ্য ভূমি সংরক্ষণ করে দৃষ্টিনন্দন স্মৃতিসৌধ তৈরির।

এ গণকবরটির বিষয়ে মুক্তিযোদ্ধা মন্ত্রীকে অবহিত করা কথা জানালেন, বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা ট্রাস্ট একাডেমির চেয়ারম্যান ড. আবুল আজাদ।

দীর্ঘ দিন ধরে নোম্যান্সল্যান্ডে অযত্নে অবহেলায় পড়ে থাকা এসব গণকবর রক্ষা এবং স্মৃতিসৌধ নির্মাণের দাবি জানিয়েছেন মুক্তিযোদ্ধা ও শহীদ পরিবারের সদস্যরা।

মো: সাইফুল ইসলাম, আখাউড়া প্রতিনিধি

সংশ্লিষ্ট খবর

Back to top button
Close