দেশবাংলা

মুক্তিযোদ্ধার স্বীকৃতি পেলেন ১০ বীরাঙ্গনা

মুক্তিযোদ্ধাদের সমান সুযোগ-সুবিধাসহ মর্যাদা পেতে যাচ্ছেন স্বাধীনতার সময় স্বামী, সন্তানসহ সব হারানো ১০ নারী। অবশেষে মুক্তিযোদ্ধার মর্যাদা পেলেন নওগাঁর রাণীনগর উপজেলার মিরাট ইউনিয়নের আতাইকুলা পালপাড়া গ্রামের ১০ বীরাঙ্গনা।

সম্প্রতি মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয় একটি গেজেটের মাধ্যমে তাদের নাম প্রকাশ করেছে। তবে ১০ জনের মধ্যে এরইমধ্যে ৪ জন পৃথিবী ছেড়েছেন বেশ কিছুদিন।

১০ বীরাঙ্গনার মধ্যে জীবনের শেষ প্রান্তে এসে কোনোমতে বেঁচে আছেন মায়া রানী সূত্রধর, রাশমণি সূত্রধর, সন্ধ্যা রানী পাল, কালীদাসী পাল, সন্ধ্যা রানী ও গীতা রানী পাল। আর বানী রানী পাল, ক্ষান্ত রানী পাল, রেণু বালা ও সুষমা সূত্রধর পৃথিবী ছেড়ে চলে গেছেন।

একাত্তরের সেই দুর্বিষহ যন্ত্রণা আর সামাজিক বঞ্চনার পাশাপাশি অভাব-অনটন ও শারীরিক অসুস্থতার মধ্যেই চলছে তাদের জীবন। এরমধ্যেও দীর্ঘ ৪৭ বছরের লালন করা স্বপ্নটি বাস্তবায়িত হওয়ায় তারা খুব আনন্দিত।

প্রসঙ্গত, ১৯৭১ সালের ২৫ এপ্রিল পাকিস্তানি বাহিনী স্থানীয় রাজাকার ও আলবদরদের সহযোগিতায় সকাল ৯টা থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত সনাতন ধর্মাবলম্বী মানুষের ওপর নির্যাতন চালায়। তখন পাকবাহিনী গণহত্যা, নারী নির্যাতন, অগ্নিসংযোগ ও লুটপাটসহ ধ্বংসযজ্ঞ চালায়। ওই দিন ৫২ জন মুক্তিকামী জনতাকে নির্বিচারে হত্যা করা হয়। এ সময় পাক-জান্তারা নারীদের ওপর চালায় পাশবিক নির্যাতন।

রাণীনগর উপজেলা সদর থেকে প্রায় ৭ কিলোমিটার দক্ষিণ-পশ্চিমে নওগাঁর ছোট যমুনা নদীর তীরে ছায়াঘেরা শান্ত আতাইকুলা পালপাড়া গ্রাম।

সংশ্লিষ্ট খবর

Back to top button
Close