দেশবাংলা

সংস্কারের অভাবে বীরশ্রেষ্ঠ রুহুল আমিন স্মৃতি জাদুঘর

বীরশ্রেষ্ঠ শহীদ রুহুল আমিনের ৪৮তম শাহাদাত বার্ষিকী আজ (মঙ্গলবার)। নানা আয়োজনে সারাদেশ তাকে স্মরণ করলেও নিজ এলাকা নোয়াখালীর সোনাইমুড়িতে তার নামে তৈরি সড়ক, স্মৃতি জাদুঘর, স্মৃতিস্তম্ভ, গণ-গ্রস্থাগারসহ বিভিন্ন স্থাপনা সংস্কারের অভাবে নষ্ট হওয়ার পথে। এতে ক্ষুব্ধ এলাকাবাসী।

এদিকে, নড়াইল হানাদার মুক্ত দিবস। বীর সেনারা এইদিন নড়াইলকে সম্পূর্ণ শত্রুমুক্ত করেন।

১৯৩৪ সালে নোয়াখালীর সোনাইমুড়ী উপজেলার দেওটি ইউনিয়নের বাগপাঁচড়া গ্রামে রুহুল আমিনের জন্ম। তিনি ছিলেন, নৌবাহিনীর ক্যাপ্টেন। মুক্তিযুদ্ধে চূড়ান্ত বিজয়ের ৬ দিন পূর্বে ১০ ডিসেম্বর খুলনার রুপসায় শত্রুদের গুলিতে শহীদ হন তিনি।

তার সম্মানে সরকার বাগপাচড়া গ্রামকে রুহুল আমিন নগর, সোনাইমুড়ী পৌরসভার উদ্যেগে সড়ক, স্মৃতি জাদুঘর, গণ-গ্রস্থাগার, স্মৃতিস্তম্ভ, স্কুল, কলেজ ও মাদ্রাসা প্রতিষ্ঠা করা হয়। কিন্তু প্রশাসনের সু-দৃষ্টি না থাকায় স্থাপনাগুলো অযত্ন অবহেলায় পড়ে আছে। গ্রন্থাগার, স্মৃতি জাদুঘরবন্ধসহ লাইব্রেরীতে নতুন বই সরবরাহ নেই।

নৌ বাহিনীর পক্ষ থেকে ৬২ লাখ টাকা ব্যয়ে থাকার ঘর করে দেয়ায় খুশি হলেও, সরকারী সাহায্য বাড়ানোর দাবি রুহুল আমিনের সন্তান শওকত আলীর। আর প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানালেন, জেলা প্রশাসক।

এদিকে, মুক্তিযুদ্ধে নড়াইলে ওসমান চৌধুরী এবং মেজর মঞ্জুর নেতৃত্বে প্রতিরোধ গড়ে তোলেন মুক্তিপাগল জনতা। মুক্তিযুদ্ধে নড়াইলে ৫জন খেতাব প্রাপ্ত হন।

তারা হলেন, বীরশ্রেষ্ঠ নূর মোহাম্মদ, বীর উত্তম মুজিবুর রহমান, বীর বিক্রম আফজাল হোসেন, বীর প্রতীক খোরশেদ আলম ও বীর প্রতীক মতিয়ার রহমান। অগ্নিঝরা সেইসব দিনের স্মৃতি আজো তাড়া করে ফেরে।

ডেস্ক রিপোর্ট, বাংলা টিভি

সংশ্লিষ্ট খবর

Back to top button
Close