দেশবাংলা

খেজুরের রস জ্বালিয়ে মুখরোচক খাবার তৈরির ধুম

যশোরের যশ, খেজুরের রস

যশোরের যশ, খেজুরের রস। যশোরের বেনাপোলসহ শার্শা উপজেলার প্রতিটি গ্রামে ঘরে ঘরে শুরু হবে গুড়-পাটালী তৈরির উৎসব। বাড়ীতে বাড়ীতে চলবে খেজুরের রস জ্বালিয়ে পিঠা পায়েসসহ হরেক রকমের মুখরোচক খাবার তৈরির ধুম।

তাই মৌসুম শুরু হতে না হতেই, এর চাহিদা মেটাতে গাছিরা ব্যস্ত হয়ে খেজুর গাছ ঝুড়তে শুরু করেছেন। আর সপ্তাহ খানেক পর নোলন স্থাপনের মাধ্যমে শুরু হবে সুস্বাদু খেজুর রস সংগ্রহের কাজ।

প্রভাতে শিশির ভেজা ঘাস আর ঘন কুয়াশার চাঁদর জানান দিচ্ছে, শীতের আগাম আগমনী বার্তা। এই মৌসুমে খেজুরের রস দিয়েই গ্রামীণ জনপদে শুরু হয়, শীতের আমেজ। শীত যত বাড়বে খেজুর রসের মিষ্টিও তত বাড়বে। শীতে সবচেয়ে বড় আকর্ষণ দিনের শুরুতে খেজুরের রস, সন্ধ্যা রস ও সুস্বাদু গুড়-পাটালী।

সুস্বাদু পিঠা ও পায়েস তৈরীতে আবহমান কাল থেকে খেজুর গুড় ওতপ্রোতভাবে জড়িত। এখানকার কারিগরদের দানা পাটালি তৈরিতে ব্যাপক নাম থাকায়, খেজুরের গুড়-পাটালীর ব্যাপক চাহিদা রয়েছে অন্যান্য জেলাসহ দেশের বাইরেও।

দেশের প্রাচীন জনপদ যশোর জেলার খেজুরের রস গুড়-পাটালীর জন্য বিখ্যাত হওয়ায়, গর্ববোধ করেন অনেকেই।

শার্শা উপজেলায় প্রায় ৫০ হাজার ৫’শটি রস আহরণকারী খেজুর গাছ রয়েছে। সেখান থেকে কৃষকরা খেজুরের রস সংগ্রহ এবং তা থেকে বিভিন্ন ধরণের মিষ্টি পণ্য তৈরি করবে। যা নিকটস্থ বাজারে বিক্রি করবেন তারা।

গ্রাম বাংলার ঐতিহ্য রক্ষায় আরো বেশি বেশি খেজুর গাছ রোপনের পরামর্শ সংশ্লিষ্টদের।

আরিফুল ইসলাম, শার্শা প্রতিনিধি

সংশ্লিষ্ট খবর

Back to top button
Close