দেশবাংলা

ভাগ্য ফিরেছে বানিয়াচংয়ের সেই খোদেজা বিবির

হবিগঞ্জের বানিয়াচংয়ে একই পরিবারের ২ প্রতিবন্ধি ছেলেকে নিয়ে বিপাকে পড়েছিলেন, বিধবা মা খোদেজা বিবি। এক ছেলের একটি কিডনী নেই। অন্যছেলে প্রতিবন্ধি। ২ ছেলেকে নিয়ে জরার্জীর্ণ একটি ঘরে অতি কষ্টে দিন কাটছিল তাদের।দ্বারে দ্বারে ঘুরেও পায়নি সরকারী বেসরকারী কোন সহায়তা।

অবশেষে, বাংলা টিভিতে সচিত্র প্রতিবেদন প্রচারিত হওয়ার পর দেশে বিদেশে সাড়া জাগে। চোখে পড়ে প্রশাসনের। আর এতে ভাগ্য ফিরে, খোদেজা বিবির। একটি সরকারী ঘরের পাশাপাশি ২ ছেলেকে প্রতিবন্ধী ভাতার আওতায় আনার ব্যবস্থা করেছে উপজেলা প্রশাসন।

হবিগঞ্জের বানিয়াচংয়ের ৩ নম্বর ইউনিয়নের কালিদাসটেকা গ্রামের মৃত আব্দুল হাসিমের ছেলে  আলামিন ও আবুল। ছোট ছেলে জন্মের আগেই মারা যান, স্বামী আব্দুল হাসিম। এরপর  প্রতিবন্ধি ছেলে ও শিশু পুত্রকে নিয়ে যুদ্ধ শুরু হয় বিধবা খোদেজার।

একটু বড় হওয়ার পর, ছোট ছেলে আলামিনের একটি কিডনী বিকল হয়ে যায়। ডাক্তারের পরামর্শে, বিকল কিডনী অপারেশন করে ফেলা হয়। গেল ১০ বছর ধরে অসুস্থ ছেলের চিকিৎসা ও খাবার যোগাতে ক্লান্ত হয়ে পড়েন তিনি। স্থানীয় চেয়ারম্যান-মেম্বারদের দারে দারে ঘুরেও, পায়নি কোনো সহায়তা।

অবশেষে বাংলা টিভির দৃষ্টি পড়ে ওই পরিবারের দিকে। প্রচারিত হয় একটি সচিত্র প্রতিবেদন। এতে দেশে বিদেশে সাড়া ফেলে,চোখে পড়ে প্রশাসনের। আর এতে ভাগ্য বদলে যায় ওই অসচ্ছল পরিবারটির।

গেল ২ জানুয়ারী উপজেলা পরিষদের সভাকক্ষে এক সভায়, খোদেজা বিবির হাতে প্রতিবন্ধী ভাতার বই তুলে দেন, উপজেলা সমাজসেবা অফিসার এবং নির্বাহী কর্মকর্তা। তাদের পৈত্রিক ভিটায় নির্মাণ করে দেয়া হয় একটি ঘর।

এমন একটি প্রতিবেদন করায় বাংলাটিভিকে সাধুবাদ জানানোর পাশাপাশি, অসহায় পরিবারকে সহায়তার বিভিন্ন দিক তুলে ধরেন, উপজেলা কর্মকর্তারা।

বানিয়াচং উপজেলা প্রশাসনের মত এমন অসহায়হায়দের পাশে, দেশের অন্যান্য জেলা উপজেলা প্রশাসন এগিয়ে এলে, গরীর দুখি মানুষের মুখে হাসি ফোটানোর পাশাপাশি বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা বিনির্মাণ সম্ভব বলে মনে করেন সুধি সমাজ।

আল আমিন, বানিয়াচং প্রতিনিধি

সংশ্লিষ্ট খবর

Back to top button
Close