দেশবাংলা

ভাঙ্গন আতঙ্কে মধুমতি পাড়ের সাধারণ মানুষ

ফরিদপুরের মধুখালী ও আলফাডঙ্গার বুক চিরে প্রবাহিত মধুমতি নদীর পানি হ্রাস পাওয়ার সাথে সাথে, বিভিন্নস্থানে ভাঙ্গন বেড়ে যাওয়ায়, আতঙ্কে সাধারণ মানুষ। এরই মধ্যে ভেঙ্গে গেছে বাড়ীঘর, মসজিদসহ ফসলী জমি। আর হুমকীতে রয়েছে শতশত বাড়ীঘর, বাজারসহ ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান।

এদিকে, ভিটেমাটি হারানো মানুষের দাবি, ত্রান নয় বরং স্থায়ী বাঁধ নির্মানের মাধ্যমে নদী ভাঙ্গন রোধের। এদিকে স্থায়ী বাঁধ নির্মাণের আশ্বাস দিয়েছেন পানি উন্নয়ন বোর্ডের কর্মকর্তারা।

অসময়ে মধুমতির ভাঙ্গনে ইতোমধ্যে আলফাডাঙ্গা উপজেলার চর নারায়নদিয়া, টগরবন্ধ, গোপালপুর, বানাসহ আশপাশের বিভিন্ন এলাকায় ভাঙ্গন দেখা দিয়েছে। বিলিন হয়ে গেছে সরকারি স্কুল, মাদ্রাসা, মসজিদ, ঈদগাহ, কবরস্থান, ফসলি জমি ও শতাধিক বসতবাড়ীসহ শত একর ফসলী জমি।

নদী ভাঙ্গনে মানবেতর জীবন যাপন করছেন উপজেলার বানা, গোপালপুর, পাচুরিয়া ও টগরবন্দ ইউনিয়নের কয়েকশ পরিবার। গৃহহীন হয়ে অন্যের জমিতে আশ্রয় নিয়েছেন তারা। ভাঙ্গণের হুমকীতে থাকা ক্ষতিগ্রস্থরা বলছেন, শুকনো মৌসুমে ভাঙ্গনরোধে ব্যাবস্থা না নিলে আগামী বর্ষা মৌসুমে চরম মূল্য দিতে হবে তাদের।

ভাঙ্গনরোধে একটি প্রকল্প নেয়ার ব্যাপারে চিন্তাভাবনা চলছে বলে জানিয়েছেন, ফরিদপুর পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী সুলতান মাহমুদ।

৫০টি গ্রামের শতশত মানুষের জীবন-জিবীকার কথা ভেবে ভাঙ্গনরোধে সংস্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের দ্রুত ও কার্যকর পদক্ষেপ চাইছেন ভুক্তভোগীরা।

এহসান উদ্দিন, ফরিদপুর প্রতিনিধি

সংশ্লিষ্ট খবর

Back to top button
Close