অপরাধবাংলাদেশ

থামছে না জাতীয় পরিচয় পত্র জালিয়াতির ঘটনা

কোনভাবেই থামছে না জাতীয় পরিচয় পত্রের জালিয়াতির ঘটনা। ভুয়া পরিচয় পত্র ব্যবহার করে  কেউ দখল করছে জমি, কেউ আবার তুলছেন ব্যাংক ঋণ। অপরাধ বিশ্লেষকের মতে, নির্বাচন কমিশনের দুর্বলতার কারণেই ঘটছে এমন জালিয়াতির ঘটনা।

তবে, অপরাধী যেই হউক তাকে আইনের আওতায় আসতেই হবে বলে জানান, এনআইডি নিবন্ধন অণুবিভাগের মহাপরিচালক ব্রিগ্রেডিয়ার জেনারেল মোহাম্মাদ সাইদুল ইসলাম।

চোখের আইরিশের প্রতিচ্ছবি ও আঙ্গুলের ছাপ নেয়াসহ বেশ কয়েকটি ধাপ সম্পন্নের পর পাওয়া যায় জাতীয় পরিচয় পত্র।যাতে সংরক্ষিত থাকে একজন নাগরিকের যাবতীয় তথ্য। সরকারি-বেসরকারি বিভিন্ন সেবা ও সুবিধা পেতে প্রয়োজন পড়ে এ পরিচয় পত্রের।

তবে অত্যন্ত জরুরী এই জাতীয় পরিচয় পত্র জালিয়াতি নিয়ে তৎপর বিভিন্ন চক্র। সম্প্রতি পরিচয় পত্রের জালিয়াতির সাথে জড়িত পাঁচ সদস্যের প্রতারক চক্রকে আটক করে ঢাকা মহানগর পুলিশের গোয়েন্দা বিভাগের লালবাগ শাখার একটি দল।

এদের মধ্যে দু’জন নির্বাচন কমিশন অফিসের ডাটা এন্ট্রি অপারেটর বলে জানা যায়। কুষ্টিয়ায় জাতীয় পরিচয় পত্র জালিয়াতি করে অন্যের জমি রেজিষ্ট্রি করে দেয়ার অভিযোগে ১৩ সেপ্টেম্বর একজনকে আটক করে পুলিশ। এছাড়া, করোনা টেস্ট জালিয়াতির মামলায় কারাগারে আটক জেকেজির সাবরিনার দুটি পরিচয় পত্র নিয়েও সমালোচনা হয় বিভিন্ন মহলে।

এদিকে, নির্বাচন কমিশনের দুর্বলতার কারণেই এ ধরণের জালিয়াতির ঘটনা ঘটছে বলে জানান অপরাধ বিশ্লেষক খন্দকার ফারজানা রহমান। জাতীয় পরিচয় পত্র জালিয়াতিকে কেন্দ্র করে গড়ে ওঠা প্রতারকদের সিন্ডিকেট ভেঙ্গে দিতে মুল হোতাদের আইনের আওতায় আনার পরামর্শ তার।

দুর্নীতিগ্রস্ত ব্যাক্তিরাই এমন অপরাধের সাথে সম্পৃক্ত উল্লেখ করে জড়িত কাউকে ছাড় দেয়া হবে না বলে হুঁশিয়ারি দেন জাতীয় পরিচয় পত্র নিবন্ধন অণুবিভাগের মহাপরিচালক। অপরাধীদের ধরতে সারাদেশে সাঁড়াশি অভিযান পরিচালনা করা হচ্ছে বলেও জানান তিনি।

এ ধরণের অপরাধ বন্ধে সংশ্লিষ্ট সবাইকে সতর্ক থাকার পরামর্শ দেন নির্বাচন কমিশনের এই উর্ধ্বতন কর্মকর্তা।

 আরমান কায়সার, বাংলা টিভি

সংশ্লিষ্ট খবর

Back to top button