অন্যান্যবাংলাদেশ

পর্যটন খাত এগিয়ে নিতে ভূমিকা রাখতে পারে ‘হোম স্টে সার্ভিস’

দেশের পর্যটন খাতকে এগিয়ে নিতে স্থানীয়দের সহায়তায় পর্যটকদের জন্য হোম স্টে সার্ভিস বড় ভূমিকা রাখতে পারে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা। বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী মাহবুব আলী জানিয়েছেন, এরইমধ্যে সারাদেশের পর্যটন এলাকায় সার্ভিসটি চালু করতে স্থানীয় লোকজনকে উদ্বুদ্ধ করা হয়েছে।

বাংলাদেশের প্রাকৃতিক রূপবৈচিত্র্য পৃথিবীর অন্যান্য দেশ থেকে অনন্য বৈশিষ্ট্যমণ্ডিত। তাই পর্যটন শিল্পের বিকাশে এদেশের রয়েছে অপার সম্ভাবনা। কিন্তু স্বাধীনতার প্রায় পাঁচ দশকেও দেশের পর্যটন শিল্প বিশ্বমানের হয়ে উঠেনি। পুরোপুরি কাজে লাগানো যায়নি এই শিল্পের সম্ভাবনাগুলো।

এদিকে, পর্যটন বিশেষজ্ঞরা মনে করছেন, বাংলাদেশের প্রায় প্রতিটি গ্রামেই রয়েছে পর্যটক আকর্ষণের নানা উপাদান। কাজে লাগাতে প্রয়োজন যথাযথ সরকারি উদ্যেগ।

আর টোয়াবের প্রথম সহ-সভাপতি শিবলুল আজিম কোরেশী বলছেন, হোটেল, মোটেল কিংবা রিসোর্ট নয়, পারিবারিক পরিবেশে দিন-রাত যাপনে ব্যতিক্রমী হোম স্টে সার্ভিস চালুর মাধ্যমে এগিয়ে যেতে পারে দেশের পর্যটন খাত।

তবে, আশার কথা দেরিতে হলেও দেশব্যাপী পর্যটনের বিকাশে গ্রাম ব্র্যান্ডিংয়ের বিশেষ উদ্যোগ নিয়েছে পর্যটন মন্ত্রণালয়। প্রান্তিক এলাকায় পর্যটন কেন্দ্রগুলোতে হোম স্টে’র মাধ্যমে কম খরচে পর্যটকদের থাকার ব্যবস্থা করতে স্থানীয় লোকজনকে উদ্বুদ্ধ করা হচ্ছে বলে জানালেন, বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন প্রতিমন্ত্রী মো: মাহবুব আলী।

পর্যটন শিল্পের শুরুটা ঠিক কোথা থেকে হওয়া উচিত? তার জবাব যথার্থভাবেই প্রতিফলিত হয়েছে এবারের বিশ্ব পর্যটন দিবসের ‘পর্যটন ও গ্রামীণ উন্নয়ন’ এই প্রতিপাদ্যে। অর্থাৎ নগরকেন্দ্রিক নয়, ফিরতে হবে শিকড়ে, আর তা করা গেলে পর্যটনের মাধ্যমেই দেশের সার্বিক উন্নয়ন সম্ভব এমনটাই মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।

আসাদ রিয়েল, বাংলা টিভি, ঢাকা

সংশ্লিষ্ট খবর

Back to top button