অন্যান্যদেশবাংলাবাংলাদেশ

চিকিৎসার খরচ জোগাড় করতে না পারায় মৃত্যু কামনা

গাইবান্ধার ফুলছড়ি উপজেলায় দীর্ঘ ৮ বছর ধরে হাত পা বাঁধা অবস্থায় বন্দি জীবন কাটছে শিশু নীরবের।দিনে গাছের সাথে,আর রাতে বেঁধে রাখা হয় খাটের সাথে। অন্যের যেন ক্ষতি না করতে পারে,সেজন্য তাকে বেঁধে রাখা হয়। চিকিৎসার খরচ যোগাড় করতে না পারায়,সন্তানের দূ:সহ কষ্টে তার মৃত্যু কামনা করেছেন অসহায় মা।বিষয়টি বিভিন্ন মাধ্যমে জানাজানি হলে, তার চিকিৎসা সহায়তার আশ্বাস দিয়েছেন,জেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা।

গাইবান্ধার ফুলছড়ি উপজেলার পূর্ব কাতলামারী গ্রামের ১০ বছরের শিশু নীরবের দিন-রাত কাটে, হাত পা বাঁধা অবস্থায়। জন্মের পরপরই অসূস্থ্য হয়ে পড়লে,সহায় সম্বল বিক্রীর পাঁচ লক্ষাধিক টাকা ব্যায়ে চিকিৎসা করালেও সুস্থ্য হয়নি শিশুটি।এদিকে নানা বাড়ী জন্ম নেয়ার পর থেকে অসুস্থ থাকায় দীর্ঘ ১০ বছরেও নীরবকে নিজ বাড়ীতে নেয়নি বাবা শরিফুল ইসলাম।

মানুষ দেখলে নীরবের চোখে-মুখে হিংস্রতা দেখা দেয়। কখনও কামড় দিতে আসে,আবার কখনও মাথা দিয়ে আঘাত করতে চায়। কখনো আবার নিজেই নিজের মাথায় আঘাত করে। ঘুমের ঔষধ দিয়ে ঘুম পাড়াতে হয় তাকে।অন্যের ক্ষতির আশংকায় দিনে গাছের সাথে আর রাতে খাটের সাথে হাত পা বাধা বন্দি জীবন কাটে শিশু নীরবের। তার চিকিৎসার জন্য সাহায্য চায়,নিঃস্ব এ পরিবারটি।

এদিকে, শিশুটিকে বাঁচাতে সরকার ও সমাজের বিত্তবানদের এগিয়ে আসার অনুরোধ জানান এলাকাবাসী ও জনপ্রতিনিধিরা। শিশু নীরবের পাশে থেকে সার্বিক সহায়তার আশ্বাস দিলেন,জেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা। সরকার ও সমাজের বিত্তবানদের সহায়তায় শিশু নিরব ফিরে পাবে তার শৈশব-কৈশর,ফিরে পাবে সুন্দর একটা স্বাভাবিক জীবন, এমন প্রত্যাশা সবার।

বাংলাটিভি/দেশবাংলা

সংশ্লিষ্ট খবর

Back to top button