অর্থনীতিবানিজ্য সংবাদবাংলাদেশবিজ্ঞান ও প্রযুক্তি

কৃষিভিত্তিক অর্থনীতি থেকে, শিল্পনির্ভরতার দিকে যাচ্ছে দেশ  

বিগত এক দশকে দেশের শিল্প খাতে ব্যাপক অগ্রগতি সাধিত হয়েছে।  এ সময়ে রপ্তানি পণ্যের তালিকায়ও নতুন যোগ হয়েছে জাহাজ, ওষুধ এবং বিভিন্ন প্রক্রিয়াজাত খাদ্যসামগ্রী।  সংশ্লিষ্টরা বলছেন, কৃষিভিত্তিক অর্থনীতি থেকে দেশের অর্থনীতি দ্রুত যাত্রা শুরু করেছে শিল্পনির্ভর অর্থনীতির দিকে।  যার ফলে করোনাকালেও বাংলাদেশের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি এশিয়ার প্রায় সব দেশের ওপরে।

স্বাধীনতার পর পরই যুদ্ধবিধ্বস্ত বাংলাদেশকে সুখী-সমৃদ্ধ রাষ্ট্রে পরিণত করার লক্ষ্যে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান দ্বিতীয় বিপ্লবের কর্মসূচি হাতে নিয়েছিলেন।  এর মূল উদ্দেশ্য ছিল, দেশীয় কাঁচামাল ও সম্পদ ব্যবহার করে শ্রমঘন শিল্পায়নের মাধ্যমে বাংলাদেশকে অর্থনৈতিকভাবে সমৃদ্ধ করা।

তার শিল্পদর্শনের অনুকরণে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাও রূপকল্প-২০২১ ও রূপকল্প-২০৪১ ঘোষণা ক’রে দেশকে সমৃদ্ধিশালী করার প্রয়াস চালিয়ে যাচ্ছেন।  এর প্রেক্ষিতেই বাংলাদেশ স্বল্পোন্নত দেশ থেকে উন্নয়নশীল দেশের তালিকায় অন্তর্ভুক্ত হয়েছে।  বিশ্বব্যাংকের মূল্যায়নে, নিম্নমধ্যম আয়ের দেশ হিসেবে স্বীকৃতি পেয়েছে বাংলাদেশ।

এ সাফল্যের পেছনে বড় ভূমিকা রয়েছে দেশের শিল্পখাতের।  জিডিপিতে যার অবদান বেড়েই চলেছে।  ২০০০-২০০১ অর্থবছরে জিডিপিতে শিল্প খাতের অবদান ছিল ২৩ দশমিক ৪ শতাংশ।  আর ২০১৯-২০ অর্থবছরে তা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৩৫ দশমিক ৯২ শতাংশে। শিল্পমন্ত্রী নূরুল মজিদ মাহমুদ এ প্রসঙ্গে বলেন,  বঙ্গবন্ধুর দিকনির্দেশনারই প্রতিফলন আজকের বাংলাদেশ। তিনি জানান, দেশের শিল্পখাত এখন একক কোন পণ্যের উপর নির্ভরশীল নয়।  দিনে দিনে প্রসার ঘটেছে নতুন শিল্পের।

দেশি-বিদেশি বিনিয়োগের মাধ্যমে দেশের শিল্পখাতকে আরও এগিয়ে নিতে, সরকার নানা পরিকল্পনা নিয়েছে বলেও জানান মন্ত্রী। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, কৃষিপ্রধান অর্থনীতি থেকে একটি শিল্পভিত্তিক অর্থনীতির দেশে পরিণত হচ্ছে বাংলাদেশ, যা মধ্যম আয়ের অর্থনীতির দেশে রূপান্তরিত হওয়ার অন্যতম পথ।

বাংলাটিভি/শহীদ

সংশ্লিষ্ট খবর

Back to top button