জনদুর্ভোগবাংলাদেশ

লাগাম টানা যাচ্ছে না সবজির বাজারে

কিছুতেই যেন লাগাম টানা যাচ্ছে না রাজধানীর কাঁচা বাজারের। উৎপাদক পর্যায়ে যে সবজির দাম ৩০ থেকে ৩৫ টাকা, ঢাকার খুচরা বাজারে তার দাম দাঁড়ায় ৮০ থেকে ১০০ টাকা। এর জন্য আড়ৎদারদের দৌরাত্ম্যকেই দুষছেন সাধারণ ক্রেতারা।

আর, বাজার নিয়ন্ত্রণে সরকারের কঠোর নজরদারির পাশাপাশি, কৃষকদের সমবায়ভিত্তিক বাজার গড়ে তোলার পরামর্শ দিলেন ক্যাবের সভাপতি গোলাম রহমান।

সবজির দাম নিয়ে এমন ক্ষোভ এখন রাজধানীর খুচরা বাজারের বেশিরভাগ ক্রেতার। বাজারগুলোতে প্রতিকেজি বেগুন ৮০ টাকা, করলা ৮০ টাকা, সিম ১২০ টাকা, শসা ৭০ টাকা, টমেটো ১২০ টাকা, একেকটি লাউ ৬০/৭০ টাকা এবং মাঝারি আকারের প্রতিটি ফুলকপি ও বাধাকপি বিক্রি হচ্ছে ৪০ থেকে ৫০ টাকায়।

আর এই বাড়তি দামে সবজি কেনা অনেকটাই কষ্টসাধ্য হয়ে দাঁড়িয়েছে নিম্ন ও মধ্যআয়ের মানুষগুলোর কাছে। অথচ, রাজধানীর সবচেয়ে বড় পাইকারি আড়ৎ কারওয়ান বাজারের ভোরবেলার চিত্র যেন একেবারেই আলাদা।

উল্লেখিত সবজিগুলোই এখানে পাইকারিতে বিক্রি হচ্ছে অর্ধেকেরও কম দামে। এ বাজারে, প্রতিকেজি বেগুন ৩০-৪০, করলা ৪০, সিম ৬০ থেকে ৭০ এবং প্রতিটি লাউ ও কপি যথাক্রমে ৩০ ও ২০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। আবার রাজধানীর বাইরে, দেশের অন্যতম বৃহৎ পাইকারি বাজার বগুড়ার মহাস্থানগড়ে সবজির বাজারদর যেন আরও আলাদা।

সেখানে প্রতিকেজি বেগুন ৩০ থেকে ৩৫ টাকা, মুলা ২৫-৩৫, লাউ ২০-২৫, করলা ৩০ থেকে ৩৫ থেকে এবং শসা ৩৫ টাকা দরে বিক্রি করছেন কৃষকরা। মধ্যস্বত্বভোগীদের এমন দৌরাত্ম্যে ক্ষুব্ধ সাধারণ ক্রেতারাও।

সবজি-তরকারির মত পচনশীল পণ্যে কিছুটা ভর্তুকি মূল্য যোগ করতে হলেও, দ্বিগুণ দামকে অনাকাঙ্খিত বলে মন্তব্য করেন ক্যাবের সভাপতি। এটি বন্ধে কৃষকদের সমবায়ভিত্তিক বাজার গড়ে তোলারও পরামর্শ দেন তিনি।

বুলবুল আহমেদ, বাংলা টিভি

সংশ্লিষ্ট খবর

Back to top button