অপরাধআইন-বিচারদেশবাংলাবাংলাদেশ

অন্ধকার ছেড়ে আলোর পথে আসতে চায় জলদস্যুরা

নদীতে ভয়ঙ্কর দস্যু আর ডাঙ্গায় কুখ্যাত ডাকাত। এমন অন্ধকার জীবন বেছে নিয়ে হত্যা, লুট আর ধর্ষণের মত অপরাধ ছিল জলদস্যুদের নিত্য দিনের খেলা। তবে, ঘন বন আর সমুদ্রের নোনা জলের অন্ধকার জীবন থেকে এখন আলোর পথে ফিরতে চান তারা। এদিকে, জলদস্যুদের নৃশংস অত্যাচারের কথা জানিয়ে এ থেকে পরিত্রাণ চেয়েছেন ভুক্তভোগীরা।

সম্প্রতি চট্টগ্রামের বাঁশখালিতে ১১টি জলদস্যু বাহিনীর ৩৪ সদস্য  আত্মসমপর্থণ করে সরকারের কাছে। দীর্ঘদিনের ডাকাতি পেশা ছেড়ে স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসার শপথ নেন তারা। জমা দেন ৯০টি আগ্নেয়াস্ত্রসহ ২ হাজার ৫৬ রাউন্ড গুলি ও কার্তুজ।

আত্মসমর্পনকারী জলদস্যুদের একজন বাইশ্যা ডাকাত। দীর্ঘ সময় অন্ধকার জগতে থেকে রীতিমত হাপিয়ে উঠেছেন তিনি। তাই কোন শর্ত ছাড়াই করলেন আত্মসমর্পণ। যে জীবন কেড়ে নিয়েছে সমাজ,সংসার, স্ত্রী সন্তানের ভালোবাসাসহ সব কিছু, সে দুর্বিষহ দস্যু জীবনের কথা চিরতরে ভুলে যেতে চান তিনি।

আর প্রিয়জনকে কাছে ফিরে পেতে ব্যাকুল স্বজনেরাও চান কেউ যেন এমন অভিশপ্ত জীবনে পা না বাড়ায়। এদিকে,  জলদস্যুদের নৃশংস হামলার বর্ণনা দিতে গিয়ে রীতিমত শিউরে উঠেন ভুক্তভোগীরা। তাদের একটাই চাওয়া উপকূলীয় জনপদ হবে দস্যুমুক্ত।

 

বাংলাটিভি/শহীদ

সংশ্লিষ্ট খবর

Back to top button