অন্যান্যবাংলাদেশ

মাস্ক পরিধান বাধ্যতামূলক হলেও বেশিরভাগই মানছেন না

করোনার সংক্রমণ ঠেকাতে মাস্ক পরিধান বাধ্যতামূলক করা হলেও, বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই এখনও তা মানা হচ্ছে না। সরকারের পক্ষ থেকে বার বার তাগিদ দেয়ার পরও স্বাস্থ্যবিধি মানছে না সাধারণ মানুষ।

এ অবস্থায়, মাস্ক পরা নিশ্চিত করতে কঠোর অবস্থানে যাচ্ছে সরকার। এর অংশ হিসেবে রাজধানীতে ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান  শুরু করেছে জেলা প্রশাসন।

দেশে হঠাৎই বাড়তে শুরু করেছে করোনায় মৃত্যু ও আক্রান্তের সংখ্যা। মঙ্গলবার এতে ৩৯ জনের মৃত্যুর খবর জানায় স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। যা গত দুই মাসের মধ্যে সর্বোচ্চ একদিনের মৃত্যু। এর আগে সোমবার, ২ হাজার ১৩৯ জনের শরীরে করোনার সংক্রমণ ধরা পড়ে যা গত দশ সপ্তাহের মধ্যে সবচেয়ে বেশি।

করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ের বিষয়ে বেশ আগে থেকেই সতর্ক করে আসছেন বিশেষজ্ঞরা। এর লাগামহীন সংক্রমণে বিশ্বব্যাপী ফের আতঙ্ক সৃষ্টি হয়েছে। শীতে এ সংক্রমণ আরও বেড়ে যাওয়ার আশঙ্কায় বাংলাদেশেও নতুন করে সচেতনতা বাড়ানোর কথা বলা হচ্ছে।

তবে, সাধারণ মানুষের মধ্যে যেন এর কোনো প্রতিক্রিয়াই মিলছে না। দোকানপাট, রাস্তাঘাট কিংবা গণপরিবহণ- কোনোখানেই যেন স্বাস্থ্যবিধির বালাই নেই! মাস্ক ছাড়াই চলাচল করতে দেখা যায় বেশির ভাগ মানুষকে। মাস্ক ছাড়া গণপরিবহনে ওঠায় নিষেধাজ্ঞা থাকলেও, খোদ  পরিবহন শ্রমিকরাই তা মানছেন না।

এদিকে, ঢাকা জেলা প্রশাসন জানিয়েছে, সচেতনতা বাড়াতে ঢাকা মহানগর ও বিভিন্ন উপজেলায় ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালিত হচ্ছে।

মাস্ক পরার বাধ্যবাধকতা নিশ্চিতে রাজধানীর বিভিন্ন স্থানেও ভ্রাম্যমান আদালতের মাধ্যমে বিনামূল্যে তা বিতরণসহ, নানা জনসচেতনতামূলক কার্যক্রম পরিচালনা করা হচ্ছে।  শাস্তিমূলক ব্যবস্থা হিসেবে জরিমানাও করা হয় অনেককে।

করোনা প্রতিরোধী ভ্যাকসিন বাজারে আসার আগ পর্যন্ত সচেতনতভাবে জীবনযাপনের ওপর গুরুত্বারোপ করছেন বিশেষজ্ঞরা। তারা বলছেন, কেবল মাস্ক পরেই ৮০ শতাংশ সংক্রমণ ঠেকানো সম্ভব।

আসাদ রিয়েল, বাংলা টিভি

সংশ্লিষ্ট খবর

Back to top button