জনদুর্ভোগবাংলাদেশ

মাস্ক ব্যবহারে কমেছে শ্বাসকষ্টজনিত রোগ

করোনা সংক্রমণ প্রতিরোধে সর্বস্তরে মাস্কের ব্যবহার নিশ্চিতে, কমেছে  শ্বাসকষ্টসহ অন্যান্য রোগের প্রবনতা। ভাইরাস থেকে বাঁচার চেষ্টায় বাড়তি সুফল হিসেবে, অনেকটাই কমে এসেছে  ধুলো-ময়লার দূষণজনিত নানা রোগ। তাই, শুধু করোনা নয়, সবসময় মাস্ক ব্যবহারের অভ্যাস বাড়ানোর পরামর্শ বক্ষব্যাধি বিশেষজ্ঞদের।

সবখানে এখন আতংকের নাম কোভিড-১৯। সংক্রমণ থেকে বাঁচতে, মানুষের জীবনযাত্রায় বেড়েছে মাস্কের ব্যবহার।  ভাইরাসজনিত রোগ প্রতিরোধে প্রাথমিক ব্যবস্থা হিসেবে বাধ্যতামুলক করা হয়েছে মাস্ক পরা। কাজে-কর্মে, যাওয়া-আসার রাস্তাঘাটে সর্বত্রই একধাপ আগে, সচেতনতা।

করোনা সংক্রমণ প্রতিরোধে, বাইরে বের হলেই মাস্ক ব্যবহার করাটা যেন সহজাত অনুষঙ্গ হয়ে উঠেছে দিনে দিনে। কেবল করোনাভাইরাস থেকে নয়, শীতকালীন মৌসুমে বাতাসের ধুলো-ময়লা থেকে দূষণজনিত রোগ যেমন- শ্বাসকষ্ট, কাশি ইত্যাদির প্রবণতাও কমিয়েছে মাস্কের ব্যবহার।

সবখানে মাস্ক ব্যবহার ও দুরত্ব মেনে চলায় অন্যান্যবারের তুলনায় এবার শীতে শ্বাসকষ্টজনিত রোগসহ অন্যান্য জটিল রোগীর সংখ্যা কম বলেও জানান বক্ষব্যাধি বিশেষজ্ঞরা।

করোনা প্রতিরোধের পাশাপাশি বাতাসে ভেসে বেড়ানো নানাবিধ জীবাণু থেকেও সুরক্ষায় মাস্কের গুরুত্ব  অপরিসীম। ব্যস্ত জনজীবনে, রোজকার চলাফেরায় বাড়তি সতর্কতা হিসেবে তাই মাস্কের বিকল্প।

 

বাংলাটিভি/শহীদ

সংশ্লিষ্ট খবর

Back to top button