বাংলাদেশঅন্যান্য

ট্রায়ালের অনুমতি পেল গ্লোব বায়োটেকের ভ্যাক্সিন

সব জল্পনার অবসান ঘটিয়ে ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালের অনুমতি পেল গ্লোব বায়োটেকের করোনা ভ্যাক্সিন বঙ্গভ্যাক্স। সব কিছু ঠিক থাকলে আগামী মে মাসে এটি বাজারে আসবে বলে প্রত্যাশা জানিয়েছেন, প্রতিষ্ঠানটির কর্মকর্তারা। সরকারের সহযোগিতা অব্যাহত থাকলে, দেশের মানুষকে এ ভ্যাক্সিন বিনামূল্যে সরবরাহ করা হবে বলেও জানান তারা।

গেল বছরে শুরু হওয়া অদৃশ্য করোনা ভাইরাস সময়ের পাখায় ভর করে এখন প্রবল প্রতাপে দাপিয়ে বেড়াচ্ছে গোটা বিশ্ব। স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার পরও কোনোভাবেই যেন নিয়ন্ত্রণে আনা যাচ্ছে না এই ক্ষুদ্র অণুজীবকে। প্রতিরোধে দীর্ঘ প্রচেষ্টার পর যুৎসই টিকা আবিষ্কারে সফলও হয়েছে বিশ্বের বেশ ক’টি প্রতিষ্ঠান। এরই মধ্যে কয়েকটি দেশ এর প্রয়োগও শুরু করেছে।

করোনা ভ্যাক্সিন নিয়ে বিশ্বের যে কয়েকটা কোম্পানি কাজ করছে, বাংলাদেশের গ্লোব বায়োটেক তাদের অন্যতম। বেশ কিছুদিন আগেই কোম্পানিটি ভ্যাক্সিন তৈরিতে সফল হওয়ার দাবি করে আসছিল। অবশেষে এ কোম্পানির ভ্যাক্সিনের ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালের অনুমতি দিয়েছে সরকার।

ফাইজার, নাভানা ও অস্টাজেনিকার টিকাগুলো মাইনাস ৩০ থেকে ৭০ ডিক্রি তাপমাত্রায় সংরক্ষণ না করলে কার্যকারিতা হারানোর আশঙ্কা থাকে। তবে বঙ্গভ্যাক্স সাধারণ রেফ্রিজারেটরে সংরক্ষণ করা যাবে বলে আশার আলো জাগাচ্ছে এই ভ্যাক্সিন।

প্রতিষ্ঠানটির হেড অব কোয়ালিটি অপারেশন ড. মোহাম্মদ মহিউদ্দিন জানান, সবকিছু ঠিক থাকলে আগামী ৪ থেকে ৫ মাসের মধ্যেই দেশের প্রথম করোনা ভ্যাক্সিন বঙ্গভ্যাক্সকে বাজারে আনা সম্ভব হবে। সরকারের চলমান সহযোগিতা অব্যাহত থাকলে, দেশের মানুষকে তা  বিনামূল্যে সরবরাহ করা যাবে বলেও জানান তিনি।

এর ফর্মুলা নিয়ে অন্য যেকোনো প্রতিষ্ঠানও চাইলেই এ ভ্যাক্সিন প্রস্তুত করতে পারবে, বলেও জানান এই বিশেষজ্ঞ।

বুলবুল আহমেদ, বাংলা টিভি

সংশ্লিষ্ট খবর

Back to top button