দেশবাংলা

ভোলার চরাঞ্চলে তরমুজের বাম্পার ফলন

এবছর পোকা-মাকড়ের আক্রমন কম হওয়ায়, ভোলার চরাঞ্চলে তরমুজের বাম্পার ফলন হয়েছে। এতে হাঁসি ফুটে উঠেছে কৃষদের মূখে। কৃষি বিপণন অধিদপ্তরের পরামর্শে, ভোলাসহ সারাদেশের বিভিন্ন পাইকারী ও খুচরা বাজারে তরমুজ বিক্রি কোরে লাভবান চাষীরা। তারা বলছেন, বাজারে তরমুজের ভাল দাম পাওয়ায়, গত দুই বছরের লোকসান পুষিয়ে উঠছেন তারা।

মাটি ও আবহাওয়া অনুকুল এবং পোকা-মাকড়ের আক্রমন কম হওয়ায়, চলতি বছর ভোলার চরাঞ্চলে বিভিন্ন জাতের তরমুজের ভালো ফলন হয়েছে। ক্ষেতগুলোতে তরমুজ তোলার কাজে অবিরাম কাজ করছেন চাষীরা।

গত বছরের মত এবারও করোনার কারণে সারাদেশ লকডাউন থাকায়, তরমুজ বিক্রি নিয়ে চিন্তিত হয়ে পড়েন চাষীরা। আর ওই সময় ভোলা কৃষি বিপণন অধিদপ্তরের পরামর্শে, চাষীরা তরমুজ পরিবহনের গাড়ীগুলো, জরুরী কৃষি পণ্য সরবরাহ ষ্টিকার লাগিয়ে, রাজধানী ঢাকা,চট্টগ্রাম,খুলনা ও বরিশালসহ সারাদেশের পাইকারী বাজারে তরমুজ বিক্রি করছেন চাষীরা।

আড়ৎদাররা বলছেন, ভোলা কৃষি বিপণন অধিদপ্তরের সহযোগীতায়, পরিবহনের মাধ্যমে সারাদেশের বিভিন্ন পাইকারী বাজারে তরমুজের বিক্রি কোরে, কৃষকদের পাশাপশি লাভবান হচ্ছেন তারা।

জেলা কৃষি বিপণন অধিদপ্তরের কর্মকর্তা জানান,তাদের মহা-পরিচালকের নির্দেশে চাষীদের তরমুজ বিক্রির জন্য সর্বাত্মক সহযোগীতা করা হচ্ছে। এবার জেলার সাত উপজেলায় ৫ হাজার ৫৫৬ হেক্টর জমিতে তরমুজ চাষ হয়েছে। আর হেক্টর প্রতি উৎপাদন হচ্ছে ৫৫ মেট্রিক টন।

ডেস্ক রিপোর্ট/ বাংলা টিভি।

 

 

সংশ্লিষ্ট খবর

Back to top button