দেশবাংলাঅপরাধবিশ্ববাংলা

প্রবাসীর স্ত্রী ও দুই মেয়ের লাশ উদ্ধারের ঘটনায় এলাকায় চাঞ্চল্য

বান্দরবানের লামায় একটি বাড়ি থেকে,প্রবাসীর স্ত্রী ও দুই মেয়ের লাশ উদ্ধারের ঘটনায় এলাকায় চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে। ঘটনায় সন্দেহভাজন ৬ জনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করেছে পুলিশ। পারিবারিক কলহের জেরে হত্যাকান্ড সংগঠিত হয়ে থাকতে পারে বলে প্রাথমিকভাবে পুলিশের ধারণা। প্রবাসীদের পরিবারের দ্রুত আইনি সুরক্ষায় স্মার্ট কার্ড চালুর দাবি জানিয়েছে, অভিবাসন সংস্থা বায়রা।

বান্দরবানের লামা পৌরসভার ১ নম্বর ওয়ার্ডের চম্পাতলি পাড়ার কুয়েত প্রবাসী নুর মোহাম্মদের বাড়ি বাইরে থেকেই সারা দিন বন্ধ ছিল। শুক্রবার কোন সাড়া না পেয়ে জানালায় উঁকি দিয়ে দুই সন্তানের লাশ দেখতে পাওয়া যায় স্থানীয়রা।পরে পুলিশ এসে ঘরের দরজা ভেঙে প্রবাসীর স্ত্রী মাজেদা বেগম, এসএসসি পরীক্ষার্থী মেয়ে রাফি  ও ৯ মাস বয়সী শিশু সন্তান নুরির মরদেহ উদ্ধার করে।

পুলিশ জানায় নিহতদের শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। তবে কে, কখন ও কেন তাঁদের হত্যা করেছে, তা জানা যায় নি। পারিবারিক কলহের জেরে এ হত্যাকান্ড সংগঠিত হতে পারে ধারণা করে, ৬ জনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করেছে পুলিশ।দ্রুতই এই হত্যাকান্ডের রহস্য উৎঘাটন করা যাবে বলে মনে করছেন তারা।

 এ ঘটনার সুষ্ঠু বিচার দাবি করে বায়রা বলছে, দেশে থাকা প্রবাসীদের পরিবারের আইনি সুরক্ষা পেতে একটি স্মার্ট কার্ড প্রয়োজন। যার মাধ্যমে তারা নিজেদের সুরক্ষার বিষয়ে আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর সাথে যোগাযোগ রাখতে পারবে।

কুয়েত প্রবাসী নুর মোহাম্মদের স্ত্রী মাজেদা বেগম তিন মেয়ে ও মাকে নিয়ে লামা পৌরসভার চম্পাতলিপাড়ার ওই বাড়িতেই বসবাস করতেন। আকস্কিম এই হত্যাকান্ডে স্তম্ভিত পুরো এলাকা।

বাংলাটিভি/এস

সংশ্লিষ্ট খবর

Back to top button