বাংলাদেশদেশবাংলা

সীমান্ত জেলাগুলোর হাসপাতালে করোনা রোগির চাপ, বাড়ছে মৃত্যু

কঠোর বিধিনিষেধেও নিয়ন্ত্রণে আনা যাচ্ছে না করোনা পরিস্থিতি। দেশের উত্তরাঞ্চলসহ সীমান্তবর্তী জেলাগুলোতে প্রতিদিনই বাড়ছে কোভিড আক্রান্তের সংখ্যা। উপসর্গ নিয়ে রোগী মৃত্যু ও ভর্তির সংখ্যাও কম নয়। এ অবস্থায় সংক্রমণরোধে দেশের বিভিন্ন স্থানে লকডাউনের সময় বাড়াচ্ছেন স্থানীয় প্রশাসন।

করোনা সংক্রমণ ঠেকাতে লকডাউন কার্যকর করতে জামালপুর পৌর এলাকায় অভিযান চালিয়েছে প্রশাসন। সকাল থেকে শহরের বিভিন্ন এলাকায় করোনা আক্রান্তদের বাড়িতে গিয়ে তাদের স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার নির্দেশনা দেয়ার পাশাপাশি লাল পতাকা লাগিয়ে সংক্রমণ পরিস্থিতি চিহ্নিত করে দেন সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা লিটুস লরেন্স চিরান।

করোনা পরিস্থিতির উন্নতি না হওয়ায় মোংলায় চলছে কঠোর বিধি নিষেধ। বন্ধ রয়েছে দোকানপাট ও  মোংলা  নদীর  খেয়া পারাপার। তবে শহরে  লোকজনের আনাগোনা দেখা গেছে।

সাতক্ষীরায় দ্বিতীয় দফা লকডাউনের চতুর্থ দিন চলছে ঢিলে-ঢালা ভাবে। অন্যান্য দিনের মত পুলিশের কড়া নজরদারি নেই। তবে লকডাউনের নির্দেশনা না মানায় জরিমানা করছে মোবাইল কোর্ট।

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়া সীমান্ত দিয়ে ভারতীয় শিক্ষার্থী ও বাংলাদেশি নাগরিকদের আসা অব্যাহত রয়েছে। গত দুই দিনে এ স্থলবন্দর দিয়ে ১১৫ জন শিক্ষার্থীসহ ১৩৮ জন বাংলাদেশে প্রবেশ করেছেন।

নোয়াখালী পৌরসভা ও সদর উপজেলার ছয়টি ইউনিয়নে দুই দফায় লকডাউন শেষ হলেও কমছে না আক্রান্তের সংখ্যা। প্রতিদিনই বাড়ছে নতুন সংক্রমণ।

এদিকে, গত ২৪ ঘন্টায় রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের করোনা ওয়ার্ড ও আইসিইউতে আরও ১২ জনের মৃত্যু হয়েছে।

খুলনায় গত ২৪ ঘন্টায় করোনায় ৪ জনের মৃত্যু হয়েছে। তার মধ্যে খুলনায় ২ জন,  নড়াইলে ১ জন ও বাগেরহাটের ১ জন।

গোপালগঞ্জে প্রতিদিনই বাড়ছে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা। গত ২৪ ঘন্টায় এক জনের মৃত্যু সহ আক্রান্ত হয়েছে ৪৮ জন। সুস্থ হয়েছেন ৩ জন। হঠাৎ করে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে যাওয়ায় আতংক ছড়িয়ে পড়েছে সাধারন মানুষের মধ্যে।

বাংলা টিভি/ এআর

 

 

সংশ্লিষ্ট খবর

Back to top button