বাংলাদেশদেশবাংলাস্বাস্থ্য

করোনা থেকে সেরে ওঠা রোগীদের কাছে নতুন আতংক ব্ল্যাক ফাঙ্গাস

করোনা থেকে শেরে ওঠা রোগীদের কাছে নতুন আতংক হয়ে উঠেছে ব্ল্যাক ফাঙ্গাস। করোনার থেকে এই রোগে আক্রান্ত রোগীদের মৃত্যু ঝুঁকি প্রায় ২৫ ভাগ বেশি। ডায়াবেটিসসহ জটিল রোগীরা রয়েছে ব্ল্যাক ফাঙ্গাসের আক্রান্তের উচ্চ ঝুঁকিতে। বিশেষজ্ঞরা বলছেন পচা আবর্জনা থেকে দুরে থাকলে এ রোগে আক্রান্তের সম্ভাবনা প্রায় শূন্যের কোঠায়। আর সরকারের পক্ষ থেকে ব্ল্যাক ফাঙ্গাসে আক্রান্তদের চিকিৎসা সেবা নিশ্চিত করার কথা বলছে সংশ্লিষ্টরা।

ব্ল্যাক ফাঙ্গাস বিরল প্রজাতির একটি ছত্রাক। সাধারণত এটি  মানুষের শ্বাস প্রশ্বাসের মাধ্যমে শরীরে প্রবেশ করে সাইনাস,মস্তিষ্ক ও ফুসফুসে প্রভাব ফেলে। ফলে আক্রান্ত রোগীর মৃত্যুর সম্ভাবনা বেড়ে যায় বহুলাংশে। বেঁচে থাকলেও অন্ধত্বসহ শরীরে দেখা দেয় নানা জটিলতা। সংক্রমনটি বিরল হলেও সম্প্রতি দেশে এ রোগের অস্তিত্ব পেয়েছে চিকিৎসকরা।

তবে, বেশিরভাগ মানুষের ক্ষেত্রে এই ছত্রাক ক্ষতিকর নয়।  ডায়াবেটিস, এইডস বা ক্যান্সারে আক্রান্ত রোগীদের বিশেষকরে যাদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা খুব দুর্বল, তাদের ক্ষেত্রে এ সংক্রমণ প্রাণঘাতি হয়ে উঠতে পারে৷

ব্ল্যাক ফাঙ্গাস ছোঁয়াচে নয় জানিয়ে জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এটি একটি বিরল সংক্রমণ যা মিউকর মোল্ডের সংস্পর্শে এলে সংক্রমণটি ঘটে৷ মাটি, গাছপালা,পঁচা ফল, সবজি ও গোবর থেকে এটি মানবদেহে বিস্তার লাভ করে৷ তাই এ থেকে দুরে থাকার পরামর্শ তাদের।

মাথা ব্যথা, নাক বন্ধ হয়ে যাওয়া, নাক দিয়ে রক্তা পড়া, মুখের একপাশ ফুলে যওয়া, চোখ ফুলে যাওয়া বা চোখে ব্যথা করা, এমন উপসর্গ দেখা দিলে ভয় না পেয়ে চিকিৎসকের কাছে যাওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ডা.শারফুদ্দিন আহমেদ।

ব্ল্যাক ফাঙ্গাসে আক্রান্তদের শুরুতে চিকিৎসা দেয়া গেলে এই রোগের ভয়াবহতা অনেকটা কমে আসে বলেও জানান এই চিকিৎসক।

বাংলাটিভি/রাজ

সংশ্লিষ্ট খবর

Back to top button