বাংলাদেশবিএনপিরাজনীতি

সরকার পরিকল্পিতভাবে জিয়াউর রহমানকে খলনায়ক বানানোর অপচেষ্টা করছে

সরকার পরিকল্পিত ভাবে জিয়াউর রহমানকে তরুণ প্রজন্মের কাছে খলনায়ক হিসেবে উপস্থাপন করার অপচেষ্টা করছে, বলে অভিযোগ করেছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

সকালে জাতীয় প্রেসক্লাবে, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সাদা দল আয়োজিত ‘জিয়াউর রহমান ইতিহাসের ধ্রুবতারা’ শীর্ষক বইয়ের মোড়ক উন্মোচন অনুষ্ঠানে এ অভিযোগ করেন তিনি। এসময়, আওয়ামী লীগ অত্যন্ত সুপরিকল্পিত ভাবে রাজনীতি, অর্থনীতিসহ দেশের সব অর্জনকে ধ্বংস করছে বলেও অভিযোগ করেন ফখরুল।

মির্জা ফখরুল বলেন, আজকে শিশুদেরকে শেখানো হয় যে, জিয়াউর রহমান হচ্ছেন কিলার। শেখ মুজিবুর রহমানের হত্যার সঙ্গে নাকি জিয়াউর রহমান জড়িত। এসব কথা সব জায়গায় বলা হয়। প্রধানমন্ত্রী থেকে শুরু করে সর্বনিম্ন যে কর্মী সবাই একই কথা বলেন। ওটাকে আমাদের কাউন্টার করতে হবে। আমরা যারা বাংলাদেশি জাতীয়তাবাদে বিশ্বাস করি, শহীদ জিয়ার আদর্শে বিশ্বাস করি। এটা বোঝাতে হবে যে, এটা তো সঠিক নয়ই, বরং উল্টো মিথ্যা বলছেন তারা। কেন বলছেন কি কারণে বলছেন এটাও আমাদের বুঝতে হবে।

তিনি বলেন, ১৯৭১ সালে স্বাধীনতার যে যুদ্ধ হয়েছে, রেসকোর্সে যে অস্ত্র সমর্পণ হয়েছে সেখানে কারা কারা ছিলেন। আমরা যারা ইতিহাস পড়েছি তারা জানি, আমাদের যে সর্বাধিনায়ক জেনারেল ওসমানী তিনিই ছিলেন না। অথচ (ভারতের) আর্মির কাছে সারেন্ডার করেছে। এ বিষয়গুলো জানা দরকার। কেন কি কারণে তিনি উপস্থিত হতে পারলেন না, কেন তাকে উপস্থিত হতে দেওয়া হলো না। ৭৫ সালের পরে কেন কি কারণে এত বড় একটা রাজনৈতিক দল, একজন অবিসংবাদিত নেতা, কি কারণে অতি দ্রুত এদেশের মানুষের আস্থা হারালেন। এ জিনিসগুলো বোঝা দরকার, জানা দরকার।

বিএনপির মহাসচিব বলেন, আমি কখনও কাউকে ছোট করতে চাই না। যার যেটা পাওনা আছে সেটা তাকে দিতে হবে। পাওনাটা আছে যার, যিনি যুদ্ধ শুরু করলেন, অবস্থা পাল্টে দিলেন, যুদ্ধ শুরু করে দেশের স্বাধীনতার মূল কাজটা শুরু করলেন, তাকে একেবারে বাদ দিয়ে দিলেন? শুধু তাকে না, তাদের (আওয়ামী লীগের) লোকগুলোকেও বাদ দিয়েছে। ওসমানীর কথা একবারও বলে না। তাজউদ্দীনের কথা কেউ একবার উচ্চারণও করে না। মানে একজন মানুষ ছাড়া আর কোনো মানুষই নেই, এখন এই হচ্ছে তাদের ইতিহাস।

বাংলাটিভি/ এস

সংশ্লিষ্ট খবর

Back to top button