fbpx
বাংলাদেশ

সুন্দরবন এলাকায় দস্যুতা বন্ধে র‌্যাবের স্থায়ী ক্যাম্প করা হবে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

কেউ যাতে ভবিষ্যতে সুন্দরবন এলাকায় দস্যুতা করতে না পারে, সেজন্য র‌্যাবের স্থায়ী ক্যাম্প স্থাপনের পাশাপাশি কোস্টগার্ডকে আরো শক্তিশালী করা হবে বলে জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান কামাল।

একই সাথে দেশকে নিয়ে কোন ষড়যন্ত্র বরদাশত করা হবে না বলেও জানান তিনি। রামপালে দস্যুমুক্ত সুন্দরবনের তৃতীয় বছর,উপলক্ষে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন। এ সময়,পুনর্বাসনের পরও নতুন করে কেউ সুন্দরবনে  দস্যুতায় জড়ানোর চেষ্টা করলে কঠোরভাবে দমনের হুঁশিয়ারি দেন আইজিপি ও র‌্যাব মহাপরিচালক।

সুন্দরবনে জলদস্যুতা ছেড়ে আত্মসমর্পণের ৩য় বছরে ৩২৮ জনকে পুনর্বাসনে ঘর, মুদি দোকান, নৌকা ও জালসহ গবাদিপশু হস্তান্তর করেছে র‌্যাব।

এসময় আত্মসমর্পণের মাধ্যমে স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসা দস্যুরা দাবী করেন তাদের বিরুদ্ধে বিভিন্ন সময়ে হওয়া মামলা প্রত্যাহারের।

পুনর্বাসন অনুষ্ঠানে র‌্যাব মহাপরিচালক চৌধুরী আবদুল্লাহ আল মামুন ও পুলিশ মহাপরিদর্শক ড.বেনজির আহমেদ বলেন আত্মসমর্পণ করা কোন ব্যক্তি আবারো আগের অপকর্মে ফেরার চেষ্টা করলে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এসময় অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেন, কেউ যেন নতুন সুন্দরবন এলাকায় দস্যুতা করতে না পারে, এ জন্য র‌্যাবের স্থায়ী ক্যাম্প স্থাপন করা হবে। দেশকে নিয়ে কোন ষড়যন্ত্র বরদাশত করা হবে না বলেও এসময় হুশিয়ারি দেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী। পাশাপাশি আত্মসমর্পন কারীদের বিরুদ্ধে করা মামলা তুলে নেয়ারও আশ্বস দেন তিনি।

২০১৮ সালে র‍্যাবের কাছে সর্বমোট ৩২টি দস্যু বাহিনীর ৩২৮ জন সদস্য  আত্মসমর্পণ করেন। এসময় ৪৬২টি অস্ত্র, ২২ হাজার ৫০৪ রাউন্ড গোলাবারুদ জমা দেয় জলদস্যুরা। ওই বছর ১ নভেম্বর সুন্দরবনকে ‘দস্যুমুক্ত সুন্দরবন’ ঘোষণা করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

বাংলাটিভি/ সাকিব

সংশ্লিষ্ট খবর

Back to top button