ঐক্যফ্রন্টবিএনপিরাজনীতি

ন্যায়বিচার প্রাচীন পাণ্ডুলিপির অন্তর্ভুক্ত হতে যাচ্ছে

বাংলাদেশে ন্যায়বিচার প্রাচীন পাণ্ডুলিপির অন্তর্ভুক্ত বিষয়ে পরিণত হতে যাচ্ছে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী। শুক্রবার সকালে নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ মন্তব্য করেন।

রিজভী বলেন, ‘শুধু চর নয়, নির্বাচনে নদীসহ চর দখল করবে বলেই জাতীয়তাবাদী শক্তির অবিসংবাদিত নেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে বন্দী করা হয়েছে। এই পরিকল্পনা বর্তমান শাসকগোষ্ঠীর শুরু করে অনেক দিন আগেই। সেইজন্য বানোয়াট মামলা সাজিয়ে নির্বাচনের প্রায় বছর খানেক আগেই সাজা দিয়ে তাকে বন্দী করা হয়।’

রাষ্ট্রশক্তি সম্পূর্ণভাবে শেখ হাসিনার হাতের মুঠোয় অভিযোগ করে তিনি বলেন, ‘প্রশাসন, আইন প্রয়োগকারি সংস্থা এবং আদালত কারো টু শব্দ করার উপায় নেই। টু শব্দ করলে পরিণতি কী হবে, তারও দৃষ্টান্ত স্থাপন করা হয়েছে সাবেক প্রধান বিচারপতিকে দেশ থেকে তাড়িয়ে।’

রিজভী বলেন, ‘শেখ হাসিনা যা চান তার বাইরে কাজ করার কোনো সুযোগ নেই। ন্যায়বিচার থাকলে বেগম জিয়া খালাস পেতেন। নির্বাচনে বেগম খালেদা জিয়ার উপস্থিতিতে যে ঢেউ উঠতো, সেটিকে বাধা দেওয়ার জন্য সরকার তাকে আটকে রেখেছে। ত্রাস সৃষ্টি করে একতরফা নির্বাচন করার জন্য বেগম খালেদা জিয়াকে অন্যায়ভাবে সাজা দিয়ে কারাবন্দী করে রাখা হয়েছে।’

‘পরাজয় বুঝতে পেরে নাশকতার পরিকল্পনায় বিএনপি’ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার এমন বক্তব্যের জবাবে রিজভী বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রীর কাছে কয়েকটি প্রশ্ন করতে চাই। বিএনপি মহাসচিবের গাড়ি বহরে হামলা করেছে কে? বাবু গয়েশ্বর চন্দ্র রায়কে রক্তাক্ত করেছে কে ? ব্যারিষ্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন ও রোমানা মাহমুদকে গুলি করেছে কে ? হাবিবুর রহমান হাবিবকে হত্যা করার জন্য ছুরি ঢুকিয়েছে কে? মির্জা আব্বাস, আফরোজা আব্বাস, ড. মঈন খান, মওদুদ আহমদ, মেজর হাফিজ ও হাসিনা আহমেদের মিছিলে হামলা করেছে কে ?’

‘শহীদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানী, হাফিজ ইব্রাহিম, ডাঃ সানসিলা প্রিয়াংকার ওপর হামলা চালিয়েছে কে? সারাদেশে ধানের শীষের শতাধিক প্রার্থীর ওপর রক্তাক্ত হামলার ঘটনা ঘটেছে। কারা এসব ঘটনা ঘটিয়েছে জানতে চান রিজভী।

তিনি বলেন, ‘এখনও বিভিন্ন স্থানে ধানের শীষের প্রার্থীরা তাদের নিজ নিজ বাড়িতে অবরুদ্ধ আছেন। গতকাল রাতে কিশোরগঞ্জে ধানের শীষের প্রার্থীর বাড়িতে বিএনপি নেতা শহীদুল ইসলাম শহীদকে হত্যা করা হয়েছে। যারা এসব সহিংস অপকর্মে লিপ্ত, তাদেরকে কি শান্তির বার্তাবাহক বলতে হবে?’

সংবাদ সম্মেলনে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন বিএনপির চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আতাউর রহমান ঢালী, বিএনপির শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক ওবায়দুল ইসলাম, সহ-দফতর সম্পাদক মুনির হোসেন, বেলাল আহমেদসহ অন্যারা।

বাংলাটিভি/পাইক

সংশ্লিষ্ট খবর

Back to top button
Close