অন্যান্যবাংলাদেশ

সড়ক নিরাপত্তার সাথে সংশ্লিষ্ট সকল সংস্থার মাঝে কার্যকর সমন্বয় তৈরির তাগিদ

 

সড়ক নিরাপত্তার সাথে সংশ্লিষ্ট সকল সংস্থার মাঝে কার্যকর সমন্বয় তৈরি এবং নিরাপদ সড়ক গড়তে সিটি কর্পোরেশন, জেলা পরিষদ, পৌরসভাসহ সকল স্তরের স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠানগুলোকে সম্পৃক্ত করতে হবে।

সকালে রাজধানীর সিরডাপ মিলনায়তনে সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তরের উদ্যোগে ৫ম বিশ্ব নিরাপদ সড়ক সপ্তাহ ২০১৯ উপলক্ষ্যে মহাসড়কের ইন্টারসেকশন সমূহে সড়ক নিরাপত্তা বিষয়ক জাতীয় দিনব্যাপী কর্মশালায় এসব কথা বলেন তারা ।

সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তরের প্রধান প্রকৌশলী ইবনে আলম হাসানের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগের সচিব মো. নজরুল ইসলাম ।

 এ সময় বক্তারা বলেন, নিরাপদ সড়কের জন্য আমাদের মানসিকতার পরিবর্তন ঘটাতে হবে। তারা বলেন, মহাসড়কের পাশের অস্থায়ী হাটবাজার সরানো জরুরি। এর পাশাপাশি সচেতনতা বাড়াতে পাঠ্যপুস্তকে ট্রাফিক বিধি সংযোজন করতে হবে। ফুটওভার ব্রীজ ব্যবহার ও যত্রতত্র রাস্তা পারাপার বন্ধে আরো কঠোর আইন প্রয়োগ করতে হবে। মহাসড়কের ইন্টারসেকশন সমূহকে সঠিক ব্যবস্থাপনা ও সার্বক্ষণিক নজরদারিতে আনতে হবে। দূর করতে হবে সড়কের নির্মাণজনিত ত্রুটি।

এসময় অন্যান্যর মাঝে বক্তব্য রাখেন নাগরিক সমাজের প্রতিনিধি, কলামিস্ট সৈয়দ আবুল মকসুদ, নিরাপদ সড়ক চাই আন্দোলনের চেয়ারপার্সন ইলিয়াস কাঞ্চন, বুয়েটের দুর্ঘটনা গবেষণা ইনস্টিটিউটের পরিচালক ড. মিজানুর রহমান, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. আজিজুর রহমান, হাইওয়ে পুলিশের ডিআইজি আতিকুল ইসলাম, সড়ক বিভাগের অতিরিক্ত সচিব মো. বেলায়েত হোসেন, প্রকৌশলী আব্দুল ওয়াহিদ ও প্রকৌশলী ফজলুল করিম।

কর্মশালায় সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তরের উদ্যোগে দেশের জাতীয় ও আঞ্চলিক মহাসড়কের ছয়শ তিরানব্বইটি সড়ক সংযোগস্থল বা ইন্টারসেকশন এর ওপর এক সমীক্ষা প্রতিবেদন উপস্থাপন করা হয়।

দিনব্যপী কর্মশালায় সড়ক প্রকৌশলীসহ নাগরিক সমাজের প্রতিনিধি, সড়ক নিরাপত্তা নিয়ে কাজ করা বিভিন্ন বেসরকারী সংস্খার প্রতিনিধি, হাইওয়ে পুলিশ, পরিবহন মালিক-শ্রমিক প্রতিনিধি এবং অন্যান্য অংশীজন উপস্থিত ছিলেন।

বাংলাটিভি/শহীদ

সংশ্লিষ্ট খবর

Back to top button
Close