অপরাধআইন-বিচারবাংলাদেশ

কুমিল্লার দাউদকান্দিতে ইফতার পার্টিতে ১৪৪ ধারা জারি

 

আওয়ামী লীগের পাল্টা ছাত্রলীগের ইফতার ও দোয়া মাহফিলে প্রশাসনের ১৪৪ ধারা জারি

 কুমিল্লার দাউদকান্দি উপজেলা আওয়ামী লীগের ইফতার ও দোয়া মাহফিলের সাথে স্থানীয় সংসদ সদস্য সুবিদ আলী ভূঁইয়া তাঁর স্ত্রী এবং ছেলে উপজেলা চেয়ারম্যান মেজর (অবঃ) মোহাম্মদ আলী সুমন তাদের অনুসারী ছাত্রলীগের কিছু কর্মীদের দিয়ে একই স্থানে পাল্টা ইফতারের আয়োজন করায় স্থানীয় প্রশাসন ১৪৪ ধারা জারি করেন। পরে নির্ধারিত স্থানের বাহিরে ইফতার ও দোয়া মাহফিল করেন উপজেলা আওয়ামী লীগ। উপজেলা আওয়ামী লীগের ইফতার ও দোয়া মাহফিলে অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক ইঞ্জিনিয়ার মো. আব্দুস সবুর।

রবিবার দাউদকান্দি উপজেলা আওয়ামী লীগ কার্যালয়ের সামনে প্রশাসনের অনুমতিক্রমে রাসেল স্কয়ারে ইফতারের আয়োজন করে উপজেলা আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীরা। কিন্তু উপজেলা আওয়ামী লীগ ইফতারের ঘোষণার পর আক্রোশে একই স্থানে পাল্টা ইফতারের ঘোষণা দেন স্থানীয় সংসদ সদস্য সুবিদ আলী ভূঁইয়া, তাঁর স্ত্রী, ছেলে সুমনের নির্দেশে তাদের অনুসারী কিছু ছাত্রলীগের কর্মী। এ নিয়ে স্থানীয়দের মধ্যে বেশ কয়েকদিন যাবৎ এক উত্তেজনাকর পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়। শনিবার রাসেল স্কয়ার এর আশেপাশে এবং উপজেলার সদরের বিভিন্ন স্থানে সুবিদ আলী ভূইয়ার স্ত্রীর তত্ত্বাবধানে সুমনের নেতৃত্বে মানুষের মধ্যে আতঙ্ক ছড়াতে এমপির পেটোয়া বাহিনী দিয়ে শোডাউন দেওয়া হয়। এদিকে কোন প্রকার অনাকাঙ্খিত ঘটনা এড়াতে রাসেল স্কয়ার ও আশেপাশের স্থানে স্থানীয় প্রশাসন ১৪৪ ধারা জারি করেন। প্রশাসনের ১৪৪ ধারা জারি কারণে নির্ধারিত স্থানে ইফতার অনুষ্ঠিত হয়নি। পরে এই নির্ধারিত স্থানের বাহিরে উপজেলা আওয়ামী লীগের ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। নাম প্রকাশের অনিচ্ছুক স্থানীয় একাধিক আওয়ামী লীগ নেতা বলেন, এমপি ও তাঁর পরিবারের লোকজন দাউদকান্দি উপজেলা আওয়ামী লীগকে ধ্বংস করার খেলায় মেতেছে। যখনই আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা কোন অনুষ্ঠানের অায়োজন করেন তখনই এমপির স্ত্রী, ছেলেদের দিয়ে কিছু হাইব্রিট নেতাকর্মীদের দিয়ে অনুষ্ঠান বাধাগ্রস্থ করাতে চান। কিন্তু শত চেষ্টা করেও তাঁরা যখন নেতাকর্মীদের সাথে পেরে উঠেন না তখন মামলাসহ বিভিন্ন ভাবে হয়রানির চেষ্টা করেন।

আমরা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনার কাছে আবেদন জানাবো যেন এমপি ও তার পরিবারের লোকজনদের সংগঠনিক ভাবে শাস্তির আওতায় আনেন। তা না হলে দাউদকান্দি উপজেলায় আওয়ামী লীগ বলতে কিছুই থাকবে না। দাউদকান্দি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মাহবুব আলমেরর সহকারী মো. আলমগীর হোসেন সাংবাদিকদের জানান, দুই পক্ষে একই স্থানে ইফতারের আয়োজন করায় অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা নির্ধারিত স্থানে ১৪৪ ধারা জারি করা হয়েছে। বর্তমানে রাসেল স্কয়ারের আশে পাশে পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

বাংলাটিভি/শহীদ

সংশ্লিষ্ট খবর

Back to top button
Close