জনদুর্ভোগবাংলাদেশ

নড়বড়ে শাহজীবাজার-হরষপুর রেললাইন, ঝুকির মধ্যে ট্রেন চলাচল !

পুরানো কাঠের স্লিপার নষ্ট হয়ে গেছে অনেক আগেই। রেল লাইনের সিকের সাথে স্লিপার ধরে রাখতে নেই কোন হুক। কোথায়ও দেখা গেছে লোহার হুকের পরিবরর্তে বাঁসের ফালি দিয়ে আটকে রাখা হয়েছে ব্রীজের স্লিপার গুলো। এ অবস্থায় ঝুঁকি নিয়েই ট্রেন চলছে আখাউড়া-সিলেট রেল সেকশনের হবিগঞ্জের মাধবপুর উপজেলার শাহজীবাজার থেকে হরষপুর রেলষ্টেন পর্যন্ত আন্তনগর ও স্থানীয় ট্রেনগুলো।

পূর্ব বাংলার সাথে যোগাযোগ স্থাপন করতে ব্রিটিশ সরকারের আমলে শুরু হয় এ যোগাযোগ মাধ্যমটি। পর্যায় ক্রমে বিভিন্ন সময় প্রসার করা হয় রেল লাইনটি। দূর্বৃত্তরা রেলে নাট বল্টু আর হুক চুরি করে নিয়ে যাওয়া ঝুকির মধ্যেই চলছে এ লাইনের ট্রেন গুলো। সম্প্রতি ওই সেকশনের একটি নৈশ ট্রেন দূর্ঘটনায় পতিত হলে সাধারন যাত্রীদের মধ্যে আতংক দেখা দেয়। আলোচনায় আসে রেল লাইনের নিরাপত্তার বিষয়টি।

অনেকই প্রশ্ল তুলছে এ ঝুকিপূর্ন রেল লাইনের ব্রীজ গুলো মেরামত করা হয়নি কেন?

সরেজমিনে গিয়ে দেখাযায়, উপজেলার নয়াপাড়া ইউনিয়নের সীমানায় বেশ কয়েকটি ব্রীজে কাটের স্লিপার গুলো নষ্ট হয়ে নড়বড়ে হয়ে গেছে। ট্রেন আসলেই নড়তে থাকে স্লিপারগুলো। এ গুলোকে মজবুত রাখতে বাঁশের ফালিতে পেরাক মেরে আটকি রাখা হয়েছে।

স্থানীয় এলাকাবাসী জানান দূর্বৃত্তরা লোহার হুক ও নাটবল্টু খুলে নিয়ে যাওয়া ব্রীজ গুলো ঝুকিপূর্ন হয়ে পরেছে। নয়াপাড়া এলাকার বাসিন্ধা জাহাঙ্গির মিয়া বলেন দূর্বত্তরা প্রতিনিয়তই চুরি করে নিয়ে যাচ্ছে রেল লাইনের লোহার নাট বল্টু ও হুক গুলো। এতে ঝুকির মধ্যে রয়েছে পূর্বাঞ্চলী রেল যোগাযোগ ব্যবস্থা।

যোগাযোগ করা হলে নয়াপাড়া রেল ষ্টেশন মাষ্টার আবু সাঈদ বলেন রেল লাইন মেরামত করার ব্যপারে আমাদের কোন কাজ নেই। এ গুলো তদারকির দায়ত্বে রয়েছে পিআইডব্লিউ। তারা এ গুলো দেখাভাল করে মেরামত করেন।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে এক যুবক বলেন বাঁশ গুলো বৃষ্টিতে নষ্ট হয়ে যায়। এ গুলোর পরিবর্তে যদি কাঠ অথবা লোহার পাত দিয়ে মেরামত করা হত তাহলে বেশি দিন স্থায়ীত্ব হতো।

মুঠোফোনে জানতে চাইলে রেলওয়ের উর্ধতন উপ-সহকারি প্রকৌশলী সাইফুল ইসলাম বলেন,  ব্রীজ গুলোর মালামাল বিদেশ থেকে চলে আসছে। আগামী এক সাপ্তাহের মধ্যেই মেরামত করা হবে।

বাংলা টিভি/ হামিদুর রহমান

মাধবপুরহবিগঞ্জ

সংশ্লিষ্ট খবর

Back to top button
Close