বাংলাদেশ

ওয়াসার ১১টি খাতে অনিয়ম-দুর্নীতি পেয়েছে দুদক

ওয়াসার ১১টি খাতে অনিয়ম-দুর্নীতি পেয়েছে দুর্নীতি দমন কমিশন – দুদক। এর পরিপ্রেক্ষিতে এসব দুর্নীতির চিত্র ও ১২টি সুপারিশ করে স্থানীয় সরকারমন্ত্রীর কাছে জমা দিয়েছে সরকারি প্রতিষ্ঠানটি। দুপুরে সচিবালয়ে স্থানীয় সরকারমন্ত্রী তাজুল ইসলামের কাছে এ সংক্রান্ত প্রতিবেদন জমা দিয়েছেন দুদক কমিশনার ড. মোজাম্মেল হক খান। প্রতিবেদন গ্রহণ করে স্থানীয় সরকারমন্ত্রী বলেছেন, এই দুর্নীতিতে জড়িত কেউ পার পাবে না।

ওয়াসার ঢাকা মহানগর পানি সংগ্রহ প্রকল্পে ৫৫২ কোটি টাকা বেশি ব্যয় দেখানো হয়েছে। এ ছাড়া মিরপুরে ৫২১ কোটি টাকার একটি প্রকল্পে অতিরিক্ত ব্যয় দেখানো হয়েছে ৫২ কোটি টাকা। ঢাকা ওয়াসার এমন ১১টি প্রকল্পে কয়েকশ কোটি টাকার অনিয়ম-দুর্নীতির সন্ধান পেয়েছে দুর্নীতি দমন কমিশন- দুদক। প্রকল্প পরিচালকসহ প্রকল্প বাস্তবায়নের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট প্রকৌশলী এবং ওয়াসার ব্যবস্থাপনা কর্তৃপক্ষ থেকে শুরু করে সংশ্লিষ্ট ঠিকাদারের যোগসাজশে এসব দুর্নীতি করা হয়েছে বলে দুদকের তদন্তে উঠে এসেছে।

১১টি খাতে অনিয়ম-দুর্নীতির চিত্র ও এর পরিপ্রেক্ষিতে ১২টি সুপারিশ করে এ সংক্রান্ত একটি প্রতিবেদন দুপুরে সচিবলায়ে স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রীর কার্যালয়ে জমা দেন দুর্নীতি দমন কমিশনের কমিশনার ড. মোজাম্মেল হক খান।

এসময় দুদক কমিশনার জানান- ওয়াসার বার্ষিক প্রতিবেদন, বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রকাশিত সংবাদ ও দুদকের নিজস্ব অনুসন্ধানে এসব চিত্র উঠে এসেছে।

স্থানীয় সরকার মন্ত্রী তাজুল ইসলাম দুর্নীতির বিরুদ্ধে সরকারের কঠোর অবস্থানের কথা জানিয়ে বলেন, এই দুর্নীতির সাথে জড়িতদের বিরুদ্ধে অবশ্যই ব্যবস্থা নেয়া হবে।

ওয়াসার বিরুদ্ধে এই প্রতিবেদন সরকারের অর্থ সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানের দুর্নীতির ১৪তম প্রতিবেদন। মোট ২৫টি প্রতিষ্ঠানের ওপর প্রতিবেদন তৈরি করবে দুদক।

বাংলা টিভি/ আসাদ রিয়েল

সংশ্লিষ্ট খবর

Back to top button
Close