দেশবাংলা

স্ত্রী-সন্তান হারিয়ে শেকলবন্দি জীবন দাদন হাওলাদারের

স্ত্রী-সন্তান হারিয়ে শেকলবন্দি জীবন কাটাচ্ছেন মাদারীপুরের জায়গীর গ্রামের দাদন হাওলাদার। গেলো এক বছর ধরে মানসিক ভারসাম্যহীতার কারণে, ঘরের খুঁটির সাথে বেঁধে রেখেছেন তার বাবা-মা। তবে কাউকে দেখলেই বন্দিদশা থেকে মুক্তির আঁকুতি জানান তিনি। ফিরতে চান স্বাভাবিক জীবনে। স্বজনরা বলছেন, সরকারী সহায়তা পেলে উন্নত চিকিৎসার মাধ্যমে, সুস্থ করা যাবে তাকে।

একজন বন্দির, চোখে-মুখে মুক্ত জীবনে স্বাদ নেয়ার তাড়না। কিন্তু কে খুঁলে দিবে শিকলে বাঁধা পায়ের বাধন। সবাই যেখানে চেয়ে চেয়ে দেখে একজন অসহায় দাদন হাওলাদারের করুণ বিলাপ। সেখানে পরিবারও এগিয়ে আসে না। বরং শিকলের বন্দিকেই মেনে নিচ্ছে নিয়তি হিসেবে।  এ ঘটনা মাদারীপুরের কালকিনি উপজেলার জায়গির গ্রামের দাদনের।

দাদনের দাবী, সে সুস্থ্য। তাকে স্বাভাবিক জীবনে ফিরিয়ে দেয়া হোক। এ জন্য তিনি প্রশাসনের সহযোগিতা কামনা করেন। কিন্তু এভাবেই এক বছর ধরে পায়ে শিকল দিয়ে ঘরে বেঁধে রেখেছে তার বাবা-মা।

এ বিষয়ে মাদারীপুর জেলা প্রশাসককে জানানো হলে জেলা প্রশাসক মো. ওয়াহিদুল ইসলাম বলেন, দাদনকে স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আনতে প্রশাসনের পক্ষ থেকে সব ধরনের পদক্ষেপ নেয়া হবে।

দাদন অন্যের জমি চাষ আর আচার বিক্রি করে জীবিকা নির্বাহ করতেন। সেই আয়-উপার্জন দিয়ে স্ত্রী,এক ছেলে ও দুই মেয়ে নিয়ে দিন অতিবাহিত করতেন। কিন্তু দুই বছর আগে ছোট ভাই খবির হাওলাদার, দাদনের স্ত্রী ও ছেলে-মেয়েকে নিয়ে পালিয়ে ঢাকা চলে যান।

তারপর থেকে দাদন বাকরুদ্ধ হয়ে পড়েন। এর কিছু দিনের মধ্যেই মানসিক ভারসাম্যহীন হন তিনি।

মেহেদী হাসান, মাদারীপুর প্রতিনিধি

সংশ্লিষ্ট খবর

Back to top button
Close