দেশবাংলা

বিআরটিএ অফিসে দালাল চক্রের দৌরাত্ম্য

ড্রাইভিং লাইসেন্স, রেজিস্ট্রেশনের কাজ বিআরটিএ অফিসে হওয়ার নিয়ম থাকলেও জয়পুরহাট শহরে হচ্ছে ঠিক তার উল্টো। শহরের বেশ কয়েকটি এলাকায় ব্যক্তিগত অফিস গড়ে তুলে কাগজ পত্র করে দেয়ার নামে হাতিয়ে নেয়া হচ্ছে মোটা অংকের টাকা।

অভিযোগ রয়েছে খোদ বিআরটিএ কর্তৃপক্ষের যোগসাজসেই চলছে তাদের এসব কার্যক্রম। আর এ নিয়ে চরম ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে সেবা প্রার্থীদের। তবে বিআরটিএ’র সহকারী পরিচালক আব্দুল হান্নান, দালাল চক্রের ব্যাপারে জানালে নিজের অপারকতার কথা।

গেলো বছরের ১ নভেম্বর সড়ক পরিবহনের সংশোধিত আইন কার্যকরের ঘোষণা আসার পর থেকেই যানবাহন, রেজিস্ট্রেশন, ড্রাইভিং লাইসেন্স করতে জয়পুরহাট বিআরটিএ অফিসমুখী হচ্ছেন চালকরা। কিন্তু অফিসে যাওয়ার পরই শুরু হয় নানা রকমের হয়রানি ও ভোগান্তি। আর তাই চালকরা বাধ্য হয়েই খুঁজে নিচ্ছেন শহরে গড়ে ওঠা দালাল চক্রের অফিস অথবা স্থানীয় দালালদের।

সরকারিভাবে পেশাদার ড্রাইভিং লাইসেন্সের জন্য ২হাজার ১শ ৯৭ ও অপেশাদারের জন্য ২হাজার ৮শ ৮৭টাকা নেয়ার নিয়ম থাকলেও দালাল চক্ররা হাতিয়ে নিচ্ছেন মোটা অংকের টাকা। মুঠোফোনে বাংলা টিভির কাছে অতিরিক্ত টাকার কথা প্রকাশ করলেও স্বাক্ষাতে দালাল চক্রের অন্যতম সদস্য বিপ্লব হোসেন জানান ভিন্ন কথা।

বিআরটিএ অফিসের বাইরে যারা এ সকল কাজ করছেন তাদের একজন দালাল কাজী মোসলেমের কাছে জানতে চাইলে তারা ফরম পূরণ করে দেন বলে তারাও দ্রুত সটকে পড়েন।

ভোগান্তি, হয়রানি ও অতিরিক্ত টাকা নেয়া বন্ধ করে অবিলম্বে এসব দালাল চক্রকে বিচারের আওতায় নিয়ে আসার দাবি ভুক্তভোগীদের।

রেজাউল করিম, জয়পুরহাট প্রতিনিধি

সংশ্লিষ্ট খবর

Back to top button
Close