অপরাধবাংলাদেশ

ঢাবিতে গেস্টরুম কালচার ছাত্রলীগের নিজস্ব ‘বিচার আদালত’

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে গেস্টরুম কালচার ছাত্রলীগের এক নিজস্ব ‘বিচার আদালত’। অভিযোগ পাওয়া গেছে, আবাসিক হলগুলোতে প্রতিরাতে গেস্টরুম দরবার বসে। এসব ‘গেস্টরুম আদালতের’ নেতৃত্বে থাকেন ছাত্রলীগের হল শাখার নেতারা। এরমধ্যে কেউ প্রতিবাদী হলে দেয়া হয় নানা ধরনের শাস্তি। অনেকেই সইতে না পেরে হল ছেড়ে যেতে বাধ্য হয়েছেন।

যেমন, শীতের রাতে খালি গায়ে পুরো ক্যাম্পাস ঘুরতে হবে। পুরো রাত হলের বাইরে থাকতে হবে, তবে অন্য কোনো হলে যাওয়া যাবে না। হাতিরঝিলে গিয়ে রাতে ছয় ঘণ্টা বসে থাকতে হবে। এসবের আবার সেলফি তুলে এনে বড় ভাইদের প্রমাণ দিতে হবে। এমনকি কানধরে ওঠবস করানো হয়। আর চূড়ান্ত শাস্তি হিসেবে শারীরিক নির্যাতন করা হয় বলেও জানা যায়।– ডয়েচে ভেলে

এ প্রসঙ্গে ডাকসু ভিপি নুরুল হক নুর এক সাক্ষাৎকারে ডয়েচে ভেলেকে বলেন, ‘প্রথম বর্ষের ছাত্ররাই এর শিকার হয় বেশি৷ তাদের বিভিন্ন দলীয় কাজ, মিছিল, মিটিং, কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ নেতাদের প্রটোকলে ব্যবহার করা হয়৷ তারা যাতে এসব কাজ এড়িয়ে না যেতে পারে তাই তাদের গেস্টরুম কালচারের মাধ্যমে দমিয়ে রাখা হয়। ভয় দেখানো হয়৷ কেউ প্রতিবাদী হলে তাকে শারীরিক শাস্তিসহ নানা ধরনের শাস্তি দেয়া হয়৷’

তিনি আরো বলেন, ‘যখন যে দল সরকারে ছিল তারাই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে নিয়ন্ত্রণ ধরে রাখতে এই গেস্টরুম কালাচার চালায়। আগে যেমন এটা ক্ষমতাসীনরা ৬০ ভাগ, বিরোধীরা ৪০ ভাগ করত৷

এখন পুরোটাই ছাত্রলীগের নিয়ন্ত্রণে। ডাকসু ভিপি হয়ে আমি হলে থাকতে পারি না। তাহলে বুঝতে পারছেন পরিস্থিতি। আর এটা বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন চাইলেও দূর হবে না। কারণ, এখানে সরকারের নিয়ন্ত্রণের বিষয় আছে। তাই সমাধান সরকারকেই চাইতে হবে।

সংশ্লিষ্ট খবর

Back to top button
Close