জনদুর্ভোগদেশবাংলাবাংলাদেশ

করোনার কারনে প্রতিদিনই বাংলাদেশের বিভিন্ন এলাকা লকডাউন হচ্ছে

মরনঘাতী করোনা ভাইরাসে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের মত বাংলাদেশেও প্রতিনিয়ত বাড়ছে মৃত ও আক্রান্তের সংখ্যা।প্রতিরোধে,ইতোমধ্যে দেশের নতুন নতুন জেলা উপজেলাকে লকডাউন করা হচ্ছে।

করোনা মোকাবেলায় ব্রাক্ষনবাড়িয়ায় লক ডাউন ঘোষণা করেছেন জেলা প্রশাসক হায়াত উদ দৌলা খান। তিনি জানান,পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত সড়ক-মহাসড়ক ও নৌপথে অন্য কোন জেলা থেকে কেউ এ জেলায় প্রবেশ করতে কিংবা এ জেলা হতে অন্য কোন জেলায় যেতে পারবেনা।ঝিনাইদহের বিভিন্ন গ্রামের পর স্বেচ্ছায় লকডাউন করা হয়েছে উপজেলার ৪নম্বর হলিধানী ইউনিয়নের ৮টি ওয়ার্ড। এছাড়া ১নম্বর সালীয়া ওয়ার্ডকে উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে লকডাউন করা হয়েছে।

ভৈরব থানার একজন পুলিশ উপ-পরিদর্শক করোনায় আক্রান্ত হওয়ায় তাকে ঢাকা কুর্মিটোলা হাসপাতালে পাঠানো হয় এবং শনিবার রাতে ভৈরব থানার ওসিসহ থানায় কর্মরত ৬৪ জন এবং ৫ চিকিৎসককে ভৈরবে ট্রমা সেন্টার ও শহীদ আইভি রহমান পৌর ষ্টেডিয়ামের প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে।চুয়াডাঙ্গার জীবননগর উপজেলায় রেহাদান বেগম নামে এক নারী গতকাল শনিবার সন্ধ্যায় করোনা উপসর্গ নিয়ে মারা গেছেন। মৃত ব্যাক্তির নমুনা সংগ্রহ করে আইইডিসিআরে পাঠানো হয়েছে।

কুড়িগ্রামের নাগেশ্বরী উপজেলার ভিতরবন্দ এলাকায় জ্বর,সর্দি ও শ্বাসকষ্ট নিয়ে আজিজার রহমান ইচ্চু নামে এক ব্যক্তির মৃত্যু হয়েছে। মৃত ব্যক্তিসহ তার পরিবারের অন্যান্যদের নমুনা সংগ্রহ করার পাশাপাশি পুরো পরিবারকে হোম কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে।

মানিকগঞ্জ সদর উপজেলায় কোয়ারেন্টিনে থাকা অবস্থায়  শ্বাসকষ্টজনিত সমস্যায় গতকাল এক ব্যক্তির মৃত্যু হয়েছে।সিলেট, লকডাউন ঘোষণা করেছে জেলা প্রশাসন। গতকাল সন্ধ্যায় জেলা প্রশাসনের এক বিজ্ঞপ্তিতে জানা যায়,এখন থেকে কেউ জেলার বাইরে যেতে পারবে না এবং অন্য জেলা থেকে কেউ সিলেটে প্রবেশ করতে পারবে না।

গোপালগঞ্জের মুকসুদপুর থানার কনস্টেবল করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ায় থানায় কর্মরত ৬৬জনকে হোম কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে। পরে তার নমূনা সংগ্রহ করে ঢাকা পাঠানো হলে গতকাল সন্ধ্যায় রিপোর্টে করোনা পজেটিভ আসে।ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগর উপজেলায় জ্বর,কাশি ও শ্বাসকষ্টে মারা যাওয়া বৃদ্ধার দাফনে বাঁধা দেয়ায় পুলিশ ও এলাকাবাসীর মধ্যে সংঘর্ষ হয়। স্থানীয়রা জানায়,গতকাল দুপুরে ইব্রাহিমপুর গ্রামের ৮০ বছরের বৃদ্ধা জ্বর ও শ্বাসকষ্ট নিয়ে মারা যান।

চাঁদপুর সদর উপজেলার রামপুর ইউনিয়নের কামরাংগা গ্রামে ফয়সাল নামে এক ব্যক্তি করোনা উপসর্গ নিয়ে গতকাল সন্ধ্যায় মারা যান। তার বাড়ি জেলার মতলব উত্তর। অপরদিকে,ফরিদগঞ্জ থেকে আসা একজনকে করোনা আক্রান্ত সন্দেহে চাঁদপুর সরকারি জেনারেল হাসপাতালের আইসোলেশন ওয়ার্ডে ভর্তি করা হয়েছে।

গতকাল বিকেলে ঠাকুরগাঁওয়ে জেলার হরিপুর উপজেলার ২জন ও পীরগঞ্জ উপজেলায় ১ জনের শরীরে করোনা পজেটিভ পাওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেন,সিভিল সার্জন মাহফুজার রহমান সরকার। তাদের উপজেলা আইশোলেশনে নেয়া হয়।

বাংলাটিভি/শহীদ

 

 

 

সংশ্লিষ্ট খবর

Back to top button
Close