দেশবাংলা

সেন্ট মার্টিনে তিন তরুণের ৫০ দিনের স্বেচ্ছা বাস

এক দিন, দুদিন করে ৫৬টি দিন সেন্ট মার্টিন দ্বীপে কাটিয়ে দিলেন অবকাশযাপনে যাওয়া তিন বন্ধু। তারা বলছেন, এই সময়টায় ভিন্ন এক দ্বীপের দেখা পেয়েছেন।

ঘটনার শুরু হয় গত মার্চে। সাতজনের একটি দল অবকাশযাপনে গিয়েছিল সেন্ট মার্টিন দ্বীপে। নির্দিষ্ট সময়ে চারজন ফিরে এলেও করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার শঙ্কা আর ছুটির পূর্বাভাস পেয়ে স্বেচ্ছায় থেকে যান বাকিরা। স্বেচ্ছায় দ্বীপ কোয়ারেন্টিনে থাকা এই তিন পর্যটক হলেন, রাজধানীর এনজামুল হক, আরশাদ হোসেন ও সালেহ রেজা।

প্রথম আলোকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে তারা জানান, গত ১৫ মার্চ সাতজন ঘুরতে গিয়েছিলেন সেন্ট মার্টিন দ্বীপে। ২০ মার্চ থেকে করোনাভাইরাসের বিস্তার প্রতিরোধে কক্সবাজারের টেকনাফ-সেন্ট মার্টিন নৌরুটে পর্যটকবাহী জাহাজ চলাচল বন্ধ করে দেওয়া হয়। নির্দেশনা অনুযায়ী ১৯ মার্চ শেষ জাহাজ দ্বীপ ছেড়ে আসে। সে জাহাজে অন্য পর্যটকদের সঙ্গে দলের চারজন ফিরে এলেও থেকে যান তাঁরা তিনজন।

এনজামুল হক বলেন, চিন্তা করে দেখলাম, ঢাকায় কোনো কাজ নেই, অফিসও বন্ধ থাকবে, করোনার প্রকোপে ইতালি বা স্পেনের মতো অবস্থা হয়, তাহলে তো বাসা থেকে বের হতে পারব না। শেষ পর্যন্ত হিসাব মিলিয়ে দেখলাম, দ্বীপে থেকে যাওয়াই ভালো। অন্তত নির্জন দ্বীপ উপভোগ করা যাবে।’  নির্দিষ্ট সময় পর বিনে পয়সায় সে রিসোর্টেরই একটি কক্ষ বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে তাঁদের। পর্যটক না থাকায় রিসোর্টের দুজন কর্মীর সঙ্গে এক চুলায় খাবার রান্না করে খাচ্ছেন তারা।

আরেক সদস্য সালেহ রেজা বলেন, আমাদের রুমটা সৈকতের পাশে। ঘুমাতে যাই ঢেউয়ের শব্দ শুনে আবার ঘুম থেকে জেগে উঠি ঢেউয়ের শব্দে। রান্নাও নিজেরা করি। প্রতিদিন বিকেল থেকে সূর্যাস্ত পর্যন্ত সৈকতে বসে কাটিয়ে দিই। প্রতিদিন নতুন নতুন অভিজ্ঞতা হচ্ছে। মনে হচ্ছে এই দ্বীপের বাসিন্দা হয়ে গেছি।

ফিরে আসার ব্যাপারে তারা বলেন, করোনা পরিস্থিতি কোন দিন স্বাভাবিক হবে আর কোন দিন ফেরা হবে জানি না। তবে সেন্ট মার্টিন দ্বীপে থেকে মনে হচ্ছে, জীবনের সোনালি দিন কাটাচ্ছি আমরা।

সংশ্লিষ্ট খবর

Back to top button
Close