আন্তর্জাতিকইউরোপএশিয়ামধ্যপ্রাচ্য

সারাবিশ্বে প্রাণহানির ৩ লাখ, আক্রান্ত ৪৪ লাখ

মহামারি করোনায় সারাবিশ্বে প্রাণহানির সংখ্যা বেড়ে প্রায় ৩ লাখ। মোট আক্রান্ত সংখ্যা ৪৪ লাখের মতো, এ পর্যন্ত চিকিৎসায় সুস্থ হয়েছেন সাড়ে ১৬ লাখ মানুষ। রোগটি নিয়ে উদ্বেগ দিন দিন বাড়ছে।

এ পরিস্থিতিতে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বলছে, করোনা ভাইরাস সহসাই নির্মূলের সম্ভাবনা নেই। থেকে যেতে পারে এটি সহজাত রোগ হিসেবে। আগামীতে কার্যকর ভ্যাকসিন তৈরি হলে সেটির প্রয়োগ এবং মানুষের চলাফেরায় সচেতনতার মাধ্যমেই প্রতিরোধ করতে হবে এই ভাইরাস।

প্রায় ১৬ লাখ ৬০ হাজার মানুষ সুস্থ হলেও করোনার বিস্তার ঠেকাতে ব্যর্থ বাঘা বাঘা রাষ্ট্রগুলো। বিশ্বব্যাপী এ পর্যন্ত ২ লাখ ৯৮ হাজার ১৭৪ জন মানুষের মৃত্যু। সবধরনের চেষ্টা চলছে রোগের প্রতিকারে। কোন কোন দেশ তো একরকম নিয়তি দিকে তাকিয়ে।

মার্কিন মুল্লুকে লেগেছে মৃত্যুর মড়ক। ধারাবাহিক মৃত্যুতে আজো মৃত্যুর খাতায় যুক্ত হয়েছে প্রায় ২ হাজার জনের নাম। বিশ্বের সবথেকে ক্ষমতাধর দেশটিতে এরই মধ্যে মোট প্রাণহানি ৮৫ হাজার ছাড়িয়েছে। আর আক্রান্তের সংখ্যা ১৪ লাখ ৩০ হাজারের উপরে। যুক্তরাজ্যে গত ২৪ ঘন্টায় মৃত্যু হয়েছে আরো প্রায় ৫শ জনের।

দেশটিতে মোট মৃত্যু ৩৩ হাজার ছাড়ালো। আর আক্রান্তের সংখ্যা প্রায় ২ লাখ ৩০ হাজার। ইতালিতে গ্যাল ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু মিছিলে যোগ হয়েছে আরো ১৯৫ জনের নাম। এ নিয়ে মোট মৃত্যুর তালিকায় যুক্ত হলো ৩১ হাজার ১০৬ জন। আর আক্রান্ত ২ লাখ ২২ হাজার ১০৪ জন।

এদিকে, একই অবস্থা স্পেনে। গত ২৪ ঘন্টায় দেশটিতে মারা গেছে ১৮৪ জন। মোট মৃত্যু ২৭ হাজার ১০৪, আক্রান্ত ২ লাখ ৭১ হাজার ৯৫। লকডাউন শিথিল করা হয়েছে ফ্রান্সে। যদিও করোনা তার সংক্রমণ এখনো ছড়াচ্ছে। দেশটিতে মারা গেছে মোট ২৭ হাজার ৭৪ জন। আর আক্রান্ত ১ লাখ ৭৮ হাজার ৬০ জন।

অন্যদিকে, বুধবার করোনা নির্মূল বিষয়ে নিয়মিত বৈঠকে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার পরিচালক ডাক্তার মাইক রায়ান সতর্ক করে জানিয়েছে, হয়তো বা করোনাভাইরাস কখনই শতভাগ নির্মুল নাও হতে পারে। আগেও অন্যান্য কিছু ভাইরাসে এমনটি দেখা গেছে।

আগামী করোনার কার্যকর প্রতিষেধক তৈরি হলেও, ভাইরাসটি নিয়ন্ত্রণে ‘ব্যাপক প্রচেষ্টা’ অব্যাহত রাখতে হবে। সেক্ষেত্রে মানুষের চলাফেরায় সচেতনতাই হবে রোগ প্রতিরোধে মূল হাতিয়ার।

সংশ্লিষ্ট খবর

Back to top button
Close