অন্যান্যবাংলাদেশ

রিজার্ভ বাড়লেও তারল্য ধরে রাখাটাই এখন চ্যালেঞ্জ

বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভে নতুন রেকর্ড গড়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক। রিজার্ভের পরিমাণ প্রথমবারের মতো ছাড়িয়েছে ৩৫ বিলিয়ন ডলার। মাত্র তিন সপ্তাহ আগে রিজার্ভ প্রথমবার অতিক্রম করেছিল ৩৪ বিলিয়ন ডলারের সীমা। তবে, এই্ পরিস্থিতিতে তারল্য ধরে রাখাকে চ্যালেঞ্জ হিসেবে দেখছেন অর্থনীতিবিদেরা।

বাংলাদেশ ব্যাংকে সর্বশেষ ২০১৭ সালের সেপ্টেম্বরে সর্বোচ্চ ৩৩ দশমিক ৬৮ বিলিয়ন ডলারে উন্নীত হয়েছিল বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ। কিন্তু অতীতের সব রেকর্ড ভেঙ্গে বুধবার ২৪ জুন ২০২০ নাগাদ কেন্দ্রীয় ব্যাংকের এই রিজার্ভ ৩৫ বিলিয়ন ডলার ছাড়িয়ে যায়। বাংলাদেশি মুদ্রায় যার পরিমাণ দুই লাখ ৯৮ হাজার ২৬৫ কো‌টি টাকা।

করোনা প্রাদুর্ভাবের মধ্যেও সরকারের নেয়া নানা পদক্ষেপের কারণে রিজার্ভে ইতিবাচক প্রবাহ বেড়েছে উল্লেখ করে, বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্বাহী পরিচালক সিরাজুল ইসলাম বলেন, করোনাভাইরাসের কারণে আমদানি ব্যয়ের চাপ কম, বৈধপথে রেমিট্যান্স প্রবাহ বেড়ে যাওয়া, এছাড়াও বিভিন্ন দাতা সংস্থা বিশ্বব্যাংক, আইএমএফ ও জাইকার বৈদেশিক ঋণ সহায়তা ও বিশ্ব সংস্থার অনুদানের কারণে বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ বেড়েছে।

সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা অর্থনীতিবিদ ড. এ বি মির্জ্জা আজিজুল ইসলাম বলেন, রিজার্ভের প্রবাহ বেড়ে যাওয়াটা ভালো তবে অতি উৎফুল্ল হবার কারণ নেই।  এটা যথাযথ ভাবে ব্যবহারের পরেও তারল্য ধরে রাখতে পারাটাই আমাদের জন্য চ্যালেঞ্জ।

করোনার কারণে অবৈধ হুন্ডি ব্যবসাসহ আমদানি কমে যাওয়া এবং গেলো রমজানকে সামনে রেখে প্রবাসীদের পাঠানো রেমিটেন্স সাময়িক ভাবে প্রভাব ফেলেছে রিজার্ভের উর্ধবমুখি প্রবণতায়। তবে এটা দীর্ঘস্থায়ী হবে না বলেও মত দেন সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের এই উপদেষ্টা।

করোনার এই মহামারীতেও ব্যাংকের রির্জার্ভ যদি উর্ধ্বমুখী হয় তাহলে দেশের অবস্থা স্বাভাবিক হলে এর প্রবাহ আরো বাড়বে বলে মনে করেন বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্বাহী পরিচালক সিরাজুল ইসলাম। বাংলাদেশের ব্যাংকের রিজার্ভ বৃদ্ধি এবং এর যথপোযুক্ত ব্যবহারের পরে তারল্য ধরে রাখতে পারাটাই জিডিপির প্রবৃদ্ধির জন্য ইতিবাচক হবে বলে মনে করেন বিশ্লেষকরা।

শাহরিয়ার রাজ, বাংলাটিভি

সংশ্লিষ্ট খবর

Back to top button
Close