দেশবাংলা

যাত্রীবাহি লঞ্চ থেকে জুয়াড়ীকে নদীতে নিক্ষেপ

ঢাকা-কালাইয়া রুটের যাত্রীবাহি ডবল ডেকার লঞ্চ পারাবত-১৪ থেকে এক জুয়াড়ীকে নদীতে নিক্ষেপ করা হয়েছে। রোববার ভোররাতে এ ঘটনার পর থেকে খোঁজ মেলেনি।

নিখোঁজ জুয়াড়ী রুবেল গাজীর (১৪)। রুবেল উপজেলার কেশবপুর ইউনিয়নের ভরিপাশা গ্রামের হারুন গাজীর ছেলে। তার স্ত্রী ও ৬ মাস বয়সী একটি সন্তান রয়েছে।

রুবেল গাজীর চাচাতো ভাই হানিফ গাজী বলেন, শনিবার বিকালে রুবেল গাজী পারাবত লঞ্চযোগে ঢাকার উদ্দেশ্যে রওয়ানা দেয়। লঞ্চের ষ্টাফ কেবিন ভাড়া নিয়ে তারা কয়েক বন্ধু সারারাত জুয়া খেলে।

রোববার ভোররাতে লঞ্চটি মুন্সিগঞ্জের কাছাকাছি পৌঁছালে রাসেল, রফিক, কবির, ইব্রাহিম ও শহীদসহ কয়েকজন যুবক রুবেলকে কেবিন থেকে টেনে হিচড়ে বের করে মারধর করে। এক পর্যায়ে তারা রুবেলকে নদীতে নিক্ষেপ করে। এরপর থেকে রুবেলের কোন খোঁজ পাওয়া যাচ্ছে না।

প্রতিবেশী সূত্র জানায়, রুবেল ও তার ঘনিষ্ট কয়েকজন বন্ধু নিয়মিত ঢাকা-কালাইয়া ও ঢাকা-রাঙ্গাবালী রুটের একাধিক যাত্রীবাহি লঞ্চে জুয়ার আসর বসায়। জুয়া খেলা নিয়ে দ্বন্দ্বের জের ধরে তাকে মারধরের পর নদীতে নিক্ষেপ করা হয়। ঘটনার সঙ্গে জড়িত রাসেল, রফিক ও ইব্রাহিম কেশবপুর ইউনিয়নের জোড়া খুন মামলার আসামী। পুলিশের চোখ এড়াতে তারা সুকৌশলে নিয়মিত যাত্রীবাহি লঞ্চে জুয়া খেলে আসছিল।

অভিযোগ রয়েছে, লঞ্চ ষ্টাফদের সাথে বিশেষ কমিশন চুক্তিতে নিয়মিত জুয়ার আসর বসিয়ে থাকেন রাসেল ও রফিক। রাসেল, রফিক ও ইব্রাহিম কেশবপুর ইউনিয়নের জোড়া খুন মামলার আসামী জেনেও লঞ্চ কর্তৃপক্ষ তাদের আশ্রয় দিয়ে আসছেন।

বাউফল থানার ওসি মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, এ ব্যাপারে এখন পর্যন্ত কোন অভিযোগ পাইনি। অভিযোগ পেলে বিষয়টি খতিয়ে দেখা হবে।

কৃষ্ণ কর্মকার, বাউফল প্রতিনিধি

সংশ্লিষ্ট খবর

Back to top button