আন্তর্জাতিকযুক্তরাষ্ট্র

হাতি ও গাধার ভোটগ্রহণ আজ; বিশ্বব্যাপী চলছে জোর আলোচনা

যুক্তরাষ্ট্রের ৫৯তম প্রেসিডেন্ট নির্বাচন আজ। বিশ্বের সবচেয়ে ক্ষমতাধর দেশটির প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে, ২০২১ সালের জানুয়ারি থেকে পরবর্তী ৪ বছরের জন্য হোয়াইট হাউসের প্রতিনিধি নির্বাচিত করবে জনগণ।

বর্তমান প্রেসিডেন্ট রিপাবলিকান ডোনাল্ড ট্রাম্প আবারো ক্ষমতায় ফিরবেন, নাকি ডেমোক্র্যাট জো বাইডেন হবেন যুক্তরাষ্ট্রের ৪৬তম প্রেসিডেন্ট, তা নিয়ে বিশ্বব্যাপী চলছে জোর আলোচনা।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের তাকিয়ে থাকে গোটা বিশ্ব। হাতি ও গাধার মার্কা নিয়ে যুদ্ধে প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করা যুক্তরাষ্ট্রের প্রধান দুই রাজনৈতিক দল রিপাবলিকান ও ডেমোক্রেট। ৪ বছরের জন্য প্রেসিডেন্ট নির্বাচন করেন যুক্তরাষ্ট্রের জনগণ। ১৮৪৫ সালে থেকে নির্বাচনে তারিখ নড়চড় হয়নি। এবারও, নভেম্বরের প্রথম মঙ্গলবারেই ভোট।

চলতি বছর নিবন্ধিত ভোটার ২১ কোটি। অবশ্য, এবার শত বছরের রেকর্ড ভেঙ্গে আগাম ভোট পড়েছে ৯ কোটি ৮০ লাখ। মঙ্গলবার ভোটের দিন ঘিরে দেশটিতে ব্যাপক নিরাপত্তা নেয়া হয়েছে। নির্বাচন পরবর্তী সংঘাতের শঙ্কায় নিউইয়র্ক ও ওয়াশিংটন ডিসির অনেক প্রতিষ্ঠান বন্ধ করে দেয়া হয়েছে।

এবারের নির্বাচনে প্রধান ইস্যু হিসেবে ধরা হচ্ছে করোনা মহামারিকে। করোনা মোকাবেলায় বর্তমান প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প ব্যর্থ, বিরোধী শিবির থেকে তার বিরুদ্ধে এই অভিযোগ জোরালো। আর স্বাস্থ্যবিধির মানাতে জোর দিচ্ছেন প্রতিদ্বন্দ্বী বাইডেন। নির্বাচনে আরেকটি বড় ইস্যু বর্ণবৈষম্য।

এদিকে বিশ্বের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ এই নির্বাচনকে ঘিরে পৃথক জরিপ চালিয়েছে বিশ্বের কয়েকটি প্রভাবশালী গণমাধ্যম। জরিপে জানা যায়, ডেমোক্র্যাট প্রার্থী বাইডেন তাঁর প্রতিদ্বন্দ্বী রিপাবলিকান প্রার্থী ডোনাল্ড ট্রাম্পের চেয়ে সুবিধাজনক অবস্থানে রয়েছেন।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট শুধু যুক্তরাষ্ট্রের প্রধান ক্ষমতাধর তা নয়, বর্তমান রাজনৈতিক পরিস্থিতিতে গোটা বিশ্বের অন্যতম শক্তিশালী ব্যক্তিত্ব।

নির্বাচনে সাধারণ জনগণ সরাসরি ভোট দিলেও, প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত করতে তা মুখ্য নয়। প্রতি অঙ্গরাজ্যে যে প্রার্থী সংখ্যাগরিষ্ঠ ভোট পান, তিনি সবক’টি ইলেক্টোরাল কলেজ প্রতিনিধির ভোট পেয়ে যান। আর এই প্রতিনিধিদের ভোটে নির্বাচিত হন প্রেসিডেন্ট ও ভাইস প্রেসিডেন্ট।

যুক্তরাষ্ট্রের ৫০টি অঙ্গরাজ্যের মোট ইলেক্টোরাল ভোটের সংখ্যা হচ্ছে ৫৩৮টি। প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে বিজয়ী প্রার্থীকে অন্তত ২৭০টি ইলেক্টোরাল ভোট পেতে হয়। এরপর সিনেটের সভাপতি চূড়ান্তভাবে ঘোষণা করেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ও ভাইস-প্রেসিডেন্টের নাম ঘোষণা করবেন।

সংশ্লিষ্ট খবর

Back to top button