ফুটবলখেলাধুলা

আজও জাতীয় স্বীকৃতি পায়নি ‘স্বাধীন বাংলা ফুটবল দল’

মহান মুক্তিযুদ্ধ শেষে ১৬ ডিসেম্বর ১৯৭১, বিশ্ব মানচিত্রে জন্ম নেয় বাংলাদেশ। ৯ মাসের রক্তক্ষয়ী এ যুদ্ধের সময় হাতে বন্দুক নিয়ে নয়, স্বাধীন বাংলা ফুটবল দল গড়ে মুক্তিযুদ্ধে লড়েছিলেন এ দেশের ফুটবলাররা। নিজ দেশের স্বাধীনতার জন্য, ফুটবল খেলে লড়াই করার এমন দৃষ্টান্ত পৃথিবীর ইতিহাসে দ্বিতীয়টি নেই।

স্বাধীনতার ৪৯ বছর পূর্ণ করেছে বাংলাদেশ। অথচ এখনো কোনো জাতীয় পুরস্কার বা স্বীকৃতি মেলেনি এই দলটির। জীবনের প্রায় শেষলগ্নে এসে তা নিয়ে কোনো আক্ষেপও নেই তাদের।

ফুটবল যখন অস্ত্র, তখন তার প্রয়োগ দেশ মাতৃকার মুক্তির লড়াইয়ে। পুরো বাঙ্গালি জাতি যখন অস্ত্র হাতে পাকিস্তানি হানাদারদের নির্মুলে জীবন বাজি রেখে ঝাঁপিয়ে পড়েন, তখন জাকারিয়া পিন্টু, প্রতাপ শঙ্কর হাজরা, নওশেরুজ্জামান, আইনুল হক, অমলেশ সেন, কাজী সালাউদ্দিন, সুভাষ চন্দ্র সাহা, সাইদুর রহমান প্যাটেলরা ফুটবল নিয়ে যোগ দেন এ মুক্তির সংগ্রামে।

স্বাধীনতা যুদ্ধে তাঁরাও ছিলেন বীর সৈনিক। ফুটবল মাঠে বলের কারিকুরিতে বহির্বিশ্বকে জানিয়ে দিয়েছেন বাংলাদেশের মুক্তি সংগ্রামের কথা। সারা বছরই সেই অগ্নিঝরা দিনগুলোর কথা মনে পড়ে। তবে বিজয় দিবস আর স্বাধীনতা দিবস এলে ফুটবলযোদ্ধাদের স্মৃতিতে উজ্জ্বল হয়ে ওঠে সেসব দিনের কথা।

খেলার মাঠে যুদ্ধ করার অনন্য কীর্তি শুধু স্বাধীন বাংলা ফুটবল দলেরই।  তারপরও দুঃখজনক সত্য হলো, স্বাধীনতার ৪৯ বছর পরও কোনো জাতীয় স্বীকৃতি মেলেনি এই দলটির। এ নিয়ে তাদের কোনো ক্ষোভ না থাকলেও, আছে অভিমান।স্বাধীন বাংলা ফুটবল দলকে ২০০৯ এবং ১৮ সালে দু’বার সংবর্ধনা দিয়েছিল বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশন।

কিন্তু সরকারের তরফ থেকে এখনও কোনো উদ্যোগ নেয়া হয়নি। দলের ৩৬ সদস্যের অনেকেই চলে গেছেন পৃথিবী ছেড়ে। বেঁচে থাকা অনেকেও ভালো নেই। জীবনের পরন্ত বেলায়, রাষ্ট্রীয় একটা সম্মান বা স্বীকৃতি, তাদের নাম চিরঅল্মান থাকবে ইতিহাসের সোনালী পাতায়।

মোহাম্মদ হাসিব, বাংলা টিভি

সংশ্লিষ্ট খবর

Back to top button