বাংলাদেশজনদুর্ভোগ

দেশি মুরগির নামে বাজারে প্রতারণা

দেশি মুরগির নাম করে বাজারে দেদারছে বিক্রি চলছে নানা জাতের মুরগি। বিশেষ করে পাকিস্তানি বা সোনালী জাতের মুরগি দেখতে দেশী মুরগির মতোই, তাই বেশি দামে কিনে প্রতারিত হচ্ছেন সাধারণ ক্রেতারা।

পুষ্টিবিদরা বলছেন, মানের দিক থেকে দেশি এবং সংকর জাতের মুরগির তেমন একটা পার্থক্য না থাকলেও, খামারের পালন করা মুরগিতে ক্যালোরীর পরিমাণ বেশি।

মুরগির মাংস যেমন সুস্বাদু, তেমনি পুষ্টিগুনে ভরপুর প্রোটিন সমৃদ্ধ একটি খাবার। এক সময় বাঙ্গালির রসনার অন্যতম অনুষঙ্গ ছিল দেশী মুরগি। কিন্তু কালক্রমে বাজারে এসেছে নানান জাতের মুরগি। এর মধ্যে কোনোটা দেশি, কোনোটা সংকর আবার কোনোটা একেবারেই খাঁটি ব্রয়লার।

সবচেয়ে বেশি সংকট দেশি মুরগি আর সোনালির তফাৎ বের করায়। সাধারণভাবে ‘পাকিস্তানি মুরগি’ নামে পরিচিত সোনালি মুরগির চেহারা এবং আচার-আচরণ অনেকটাই দেশি মুরগির মতো বলেই গোলকধাঁধাঁয় পড়েন ক্রেতারায়। এই সুযোগে অনেক বিক্রেতাই সোনালিকে চালিয়ে দেন দেশি মুরগির নাম করে।

দেশি, সংকর, অথবা ব্রয়লার পুষ্টিগুণে কোনটাই সেভাবে কম নয় বলে করেন পুষ্টিবিদরা। তবে দেশি মুরগি উন্মুক্ত জায়গায় বেঁড়ে উঠার ফলে, মাংসে চর্বির পরিমাণ কম থাকায় এটা স্বাস্থ্যের জন্য ভালো। সেখানে দেশির মতো দেখতে খামারে চাষ করা মুরগীতে চর্বিও বেশি। এছাড়াও খামারের মুরগি খাওয়ার ক্ষেত্রে কিছু বাধ্যবাধকতার কথাও জানান এই পুষ্টিবিদ।

তাই বাজারে খাঁটি দেশি মুরগির নামে কিনলেও, আদতে একরকম প্রতারণার শিকার হচ্ছেন অনেক  ক্রেতা।

বুলবুল আহমেদ, বাংলা টিভি

সংশ্লিষ্ট খবর

Back to top button