দেশবাংলা

নেতার মনোনয়ন প্রত্যাহার, কাঁদলেন হাজারো সমর্থক

আসন্ন ঠাকুরগাঁও পৌর নির্বাচনে দলীয় মনোনয়ন না পাওয়ায় অবশেষে বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে মনোনয়ন প্রত্যাহার করে নিয়েছেন ঠাকুরগাঁও জেলা যুবলীগের সভাপতি আব্দুল মজিদ আপেল।

মঙ্গলবার (২৬ জানুয়ারি) দুপুর ১২টায় ঠাকুরগাঁও রিভাভিউ উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে পৌর শহরের সমর্থকদের সঙ্গে মনোনয়ন প্রত্যাহারের বিষয়টি তুলে ধরলে কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন হাজারো নারী-পুরুষ। এ সময় এক বেদনাদায়ক পরিস্থিতি তৈরি হয় সমর্থকদের মাঝে।

সমর্থকদের উদ্দেশ্যে আব্দুল মজিদ আপেল বলেন, দলীয় শৃঙ্খলা ভেঙে বিদ্রোহী প্রার্থী হয়ে নির্বাচন করলে সারাজীবন বিদ্রোহীর কালিমা লেগে থাকবে। এতে করে নির্বাচনে জয়ী হয়েও শান্তি পাব না। তাই প্রধানমন্ত্রীর প্রতি শ্রদ্ধা রেখে ও দলীয় নেতাদের মতামতে মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করার সিদ্ধান্ত গ্রহন করেছি।

পৌর শহরের এতে মানুষ আমাকে ভালবাসে আগে জানতাম না। মানুষের চোখের পানিই বলে দিচ্ছে আমি কতটুকু আস্থা অর্জন করতে পেরেছি। এই ভালোবাসা যেন ধরে রাখতে পারি, সকলের বিপদে-আপদে সাধারণ মানুষের সেবা করতে পারি এটাই প্রত্যাশা।

এ সময় পৌর বাসিন্দা কল্পনা রানী কান্নাজড়িত কন্ঠে বলেন, আপেল ভাই সত্যিই উদার মনের মানুষ। তার এ ত্যাগের কথা আমরা কেউ ভুলতে পারবো না। বিপদে-আপদে সব সময় পাশে পাই। মনে করেছিলাম আপেল মেয়র হয়ে জনগনের সেবা করবে। কিন্তু তাকে মেয়র হিসেবে দেখতে পেলাম না।

এ দিকে মনোনয়ন প্রত্যাহারের সিদ্ধান্তকে সাধুবাদ জানিয়েছেন তৃনমূল পর্যায়ে নেতা কর্মী ও সমর্থকরা। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে তার মনোনয়ন প্রত্যাহারের বিষয়ে একজন পোষ্টে লিখেছেন “ঠাকুরগাঁও জেলার বাঘ আপেল? গনমানুষের ঢল চোখের জল দেখ দেখ,,,” আরেকজন লিখেছেন “সেলুট বস”

প্রসঙ্গ, মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের শেষ দিনে আওয়ামী লীগের দুই প্রার্থী মনোনয়ন প্রত্যাহার করে নিয়েছেন। পৌর নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী কেন্দ্রীয় মহিলা লীগের সদস্য আরজুমানা আরা বন্যা ও বিএনিপর মনোনীত প্রার্থী জেলা বিএনপির অর্থ বিষয়ক সম্পাদক শরিফুল ইসলাম শরিফ ও ইসলামী ঐক্যজোটের প্রার্থী আনোয়ার হোসেনসহ মোট তিনজন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বীতা করছেন।

মামুনুর রশিদ, ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি

সংশ্লিষ্ট খবর

Back to top button