দেশবাংলা

নিষেধাজ্ঞার তোয়াক্কা না করে,রাজশাহীতে আবাদি জমিতে তৈরি  হচ্ছে ইটভাটা

সরকারী নিষেধাজ্ঞার তোয়াক্কা না কোরে,রাজশাহীতে বিভিন্ন আবাদি জমিতে তৈরি করা হচ্ছে ইটভাটা। ইট পোড়াতে,কয়লার পাশাপাশি ব্যবহেত হচ্ছে বিভিন্ন ধরণের গাছ। ফলে, ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে,রাস্তাঘাট, প্রধান অর্থকরী ফসল আমসহ কৃষিখাত,দূষিত হচ্ছে পরিবেশ। অনেক ভাটার বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ কোরেও,কোন প্রতিকার মিলছেনা বলে অভিযোগ,স্থানীয়দের।

রাজশাহীতে প্রায় ১৪০টি ইটভাটা চলছে পুরোদমে । তবে, পরিবেশ অধিদপ্তর জানিয়েছে এরমধ্যে ১২৫ টি ভাটার আবেদন জমা পড়েছে। আর পরিবেশ অধিদপ্তরের ছাড়পত্র পেয়েছে ২০ টি,জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে পেয়েছে ১০ টি। বাকীগুলো অবৈধভাবে গড়ে উঠেছে আবাদি জমি, স্কুল, কলেজ ও মাদ্রাসার পাশে।

ইতোমধ্যে জেলার চারঘাট উপজেলার শতাধিক ব্যক্তি,অবৈধ ইটভাটার বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ করেছেন জেলা প্রশাসক,জেলা পরিবেশ অধিদপ্তর এবং চারঘাট উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবর। কিন্তু কোন ব্যবস্থা না নেয়ায় হতাশ এলাকাবাসী। ইট প্রস্তুত ও ভাটা নিয়ন্ত্রণ আইন অনুযায়ী কৃষি জমি,শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও ঘনবসতি এলাকায় ভাটা স্থাপন করা যাবেনা। কিন্তু এই নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে, প্রতিবছর আবাদী জমিতে তৈরি হচ্ছে অসংখ্য ইটভাটা। ইট তৈরির মাটিও সংগ্রহ করা হচ্ছে,এসব জমি থেকে। এছাড়া ভাটায় গাছ পোড়ানোর ফলে দীর্ঘমেয়াদী ক্ষতির মুখে পড়ছে,কৃষিখাত।

অবৈধ ভাটার বিভিন্ন ক্ষতিকর দিক তুলে ধরে,এর বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়ার কথা জানায়, জেলা পরিবেশ অধিদপ্তর। ইতোমধ্যে বেশকিছু অবৈধ ভাটায় অভিযান চালানো হয়েছে। বাকীগুলোতেও অভিযান চালিয়ে গুড়িয়ে দেয়া হবে, জানালেন, জেলা প্রশাসক।

অনুমোদন বিহীন ইটভাটায় কাঠ পুরানোর কারণে সৃষ্ট ধোঁয়া ও ছাইয়ে, পরিবেশে বিপর্যয়ের পাশাপাশি শ্বাসকষ্টসহ নানা রোগে আক্রান্ত হচ্ছেন স্থানীয়রা। তাই প্রশাসনের দ্রুত হস্তক্ষেপ চেয়েছেন এলাকাবাসী।

বাংলাটিভি/দেশবাংলা

সংশ্লিষ্ট খবর

Back to top button