বাংলাদেশঅন্যান্য

হারিয়ে যাচ্ছে বাংলাদেশের ক্ষুদ্র জাতিসত্ত্বার মাতৃভাষা

মূলধারার শিক্ষা ব্যবস্থায় বিভিন্ন ক্ষুদ্র নৃতাত্ত্বিক গোষ্ঠীর মাতৃভাষা সংযুক্ত না করায়, চর্চার অভাবে হারিয়ে যাচ্ছে বাংলাদেশের ক্ষুদ্র জাতিসত্ত্বাগুলোর মাতৃভাষা। আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ইনস্টিটিউটের জরিপ অনুযায়ী প্রধান ভাষা বাংলা ছাড়াও  দেশের প্রায় ৪০টির মতো ভাষা থাকলেও, এর মধ্যে ১৪টি ভাষার অবস্থা বিপন্নপ্রায়। ভাষাবিজ্ঞানীরা বলছেন, প্রাক-প্রাথমিক ও প্রাথমিক পর্যায়ে বিদ্যালয়গুলোতে তাদের নিজস্ব ভাষা চর্চার জন্য বই এবং শিক্ষক তৈরি না করতে পারলে অচিরেই হারিয়ে যাবে আরও অনেক মাতৃভাষা।

বাংলাদেশের ভূখন্ডে ৫০টিরও বেশি সম্প্রদায়ের ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীর মানুষের বসবাস। বিভিন্ন সম্প্রদায়ের এই মানুষগুলোর রয়েছে নিজস্ব ভাষা, সংস্কৃতি ও ঐতিহ্য। কিন্তু দেশের বৃহৎ জনগোষ্ঠীর ভাষা বাংলা হওয়ায়, তাদের মাতৃভাষাগুলোর চর্চা নেই বললেই চলে। এতে করে প্রায় হারিয়ে যেতে বসেছে এসব ভাষা।

আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ইনস্টিটিউটের জরিপ বলছে, দেশে বাংলা ছাড়াও বিভিন্ন ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীর ৪০টির মতো ভাষা রয়েছে। তবে, এর মধ্যে ১৪টির অবস্থা বিপন্নপ্রায়।

২০১০ সালের জাতীয় শিক্ষানীতি অনুযায়ী ক্ষুদ্র জাতিগোষ্ঠীর মাতৃভাষায় প্রাথমিক শিক্ষার ব্যবস্থা করতে, প্রাক-প্রাথমিক থেকে তৃতীয় শ্রেণী পর্যন্ত পাঁচটি ভাষায় পাঠ্যপুস্তক প্রণয়ন করেছে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর। কিন্তু এসব ভাষা শিক্ষা দেয়ার জন্য এখনও প্রশিক্ষিত জনবল গড়ে তোলা হয়নি।

আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ইনস্টিটিউটের মহাপরিচালক অধ্যাপক ড. জীনাত ইমতিয়াজ আলী জানান, সরকার বাংলা ভাষার পাশাপাশি দেশের অন্যসব ভাষার প্রতিও আন্তরিক। এসব ভাষাকে বাঁচিয়ে রাখতে কাজ করছেন তারা।

ভাষাবিজ্ঞানী অধ্যাপক সৌরভ সিকদারের মতে, জাতিগোষ্ঠী যত ক্ষুদ্রই হোক না কেন তার মাতৃভাষার বিলুপ্তি একুশের মূল চেতনার পরিপন্থী।ভাষাবিদদের মতে, শুধু বাংলা ভাষারই নয়, একুশ হয়ে আজ উঠেছে বিশ্বের সব ভাষার অস্তিত্ব ও মর্যাদা প্রতিষ্ঠা আন্দোলনের অম্লান প্রতীক।

বাংলাটিভি/শহীদ

সংশ্লিষ্ট খবর

Back to top button