অর্থনীতিদেশবাংলা

বরিশালে ভাসমান পদ্ধতিতে শাক-সবজি ও চারা চাষ করে স্বাবলম্বী অনেকেই

বরিশালে প্রায় ২শ বছর ধরে ভাসমান পদ্ধতিতে বিভিন্ন শাক-সবজি ও চারা চাষ করে স্বাবলম্বী কৃষকরা। এসব সবজির চারা সরবরাহ করা হয় দেশের বিভিন্নস্থানে। কৃষি অধিদপ্তর থেকে প্রশিক্ষণসহ সবধরনের সহায়তা দিলেও, চাষাবাদ আরো সম্প্রসারিত করতে সহজশর্তে ঋণের দাবী কৃষকদের।

বরিশালে তিন উপজেলা, উজিরপুর, আগৈলঝাড়া ও বানারীপাড়ায় প্রায় ২শ বছর ধরে ভাসমান বেডে সবজি চাষ করে জীবিকা নির্বাহ করে আসছেন প্রায় ১ হাজার পরিবার। বছরের অন্তত ৮ মাস পানির উপর ভাসমান বেডে সবজি চাষ করা হয়।

মূলত কচুরিপানা দিয়ে তৈরি ভাসমান বেডে নানা জাতের শাক, কচু, লাউ, কুমাড়ো, টমেটোসহ বিভিন্ন চারা রোপণ করা হয়। আষাঢ় মাসে শুরু হয় বেড তৈরি। একটা বেড তেরি করতে ২০ থেকে ২৫ দিন সময় লাগে। আর চারা রোপন করতে সময় লাগে ১ মাস। চারা বড় হলে দেশের বিভিন্নস্থান থেকে পাইকাররা আসেন ক্রয় করতে। ভাসমান বেডে চারা রোপন করে একজন কৃষক বছরে ২ থেকে আড়াই লক্ষ টাকা পর্যন্ত আয় করতে পারেন। তবে এ পদ্ধতির চাষ আরো সম্প্রসারিত করতে সরকারি সহয়তার দাবী তাদের।

কৃষকদের প্রশিক্ষণসহ সবধরনের পরামর্শ দেয়া হয় বলে জানান, জেলা কৃষি অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক। এছাড়া ভাসমান বেডে সবজি ও মসলা চাষ গবেষনা সম্প্রসারণ ও জনপ্রিয়করণ প্রকল্পও চলমান রয়েছে।

 বাংলা টিভি/এস

সংশ্লিষ্ট খবর

Back to top button